কাতার (Qatar) : কাতারের ইতিহাস এবং বিস্তারিত তথ্য

কাতার পারস্য উপসাগরের একটি দেশ। কাতারের দক্ষিণে সৌদিআরব, পশ্চিমে দ্বীপরাষ্ট্র বাহরাইনে অবস্থিত।

আজকের আর্কেটিলে আমারা এই দেশের সবচেয়ে মাথা পিচু আয় এবং বিভিন্ন জানা অজনা তথ্য জানবো।

আরব উপদ্বীপের মত কাতারও একটি উত্তপ্ত ও শুষ্ক মরু এলাকা।

১৯৭১ সালে ২রা সেপ্টেম্বর এটি পূর্ণ স্বাধীনতা লাভ করে।

কাতার - Qatar
Doha.

কাতার (Qatar)

সরকারি নাম:স্টেট অফ কাতার

আয়তন:১১৪৩৭ বর্গকিলোমিটারের

জনসংখ্যা :২,৬৭৫,৫২২

(25.0% ভারতীয়

15% নেপালি

12.1% কাতারি

8% বাংলাদেশি

6.2% সোমালি

4% শ্রীলঙ্কান

3.8% পাকিস্তানি

52.5% অন্যান্য)

ধর্ম: ইসলাম

সরকারি ভাষা:আরবি (আরবি ৫৬%, এক চতুর্থাংশ ফারসি, বাকি অন্যন্য দেশের ভাষা)

ধর্ম:ইসলাম (ইসলাম ৬৬%,খ্রিস্টান ১৪%,হিন্দু ১৫%, বৌদ্ধ ৫%)

মুদ্রা:রিয়াল (QAR) মাথাপিছু:১৪৫,৮৯৪ (২০১৭ সাল)

জাতীয় দিবস:১৮ ডিসেম্বর

শিক্ষার হার:৫৮ শতাংশ

সর্বোচ্চ তাপমাত্রা :৫০°সেলসিয়াস

ইসলামের প্রথম যুগে, কাতারে স্থায়ী বসবাস ছিলো।ইসলাম পূর্ব যুগে কাতার আরব উপ দ্বীপের অন্যান্য দেশের মতোই পারস্যের ‘শাসানী’ রাজবংশের অধীনস্থ ছিলো। পরবর্তিতে সপ্তম শতকে সমগ্র আরব উপ দ্বীপে ইসলাম প্রসার লাভ করলে এ অঞ্চলও ইসলামের ছায়ায় চলে আসে।

১২ সেপ্টেম্বর ১৮৬৮ সালে মোহাম্মদ বিন থানি ব্রিটিশ দের সাথে একটি চুক্তি করেন।যার ফলে হাউজ অফ থানি দ্বারা কাতার ব্রিটিশদের হাতে শাসিত হয়ে আসছিলো । এরপর ১৯৭১ সালের ২ রা সেপ্টেম্বর ব্রিটিশদের

কাছ থেকএ পুরোপুরি স্বাধীনতা লাভ করে। প্রায় ১৫০ বছরের কাছাকাছি ইতিহাস আজও থানি কাতার পরিবার দ্বারা শাসিত। বিংশ শতাব্দীতে কাতারিদের প্রধান পেশা ছিলো মাছ ধরা।১৯৩৯ সালে সর্ব প্রথম তেলের খনি পাওয়া যায়।

কাতার তার মাটির নিচে খনিজ সম্পদের কারনে শক্তিশালী রাষ্ট্র হিসাবে পরিণত হয়েছে।

কাতারের ইতিহাস:

ইসলামের প্রথম যুগে, কাতারে স্থায়ী বসবাস ছিলো।ইসলাম পূর্ব যুগে কাতার আরব উপ দ্বীপের অন্যান্য দেশের মতোই পারস্যের ‘শাসানী’ রাজবংশের অধীনস্থ ছিলো। পরবর্তিতে সপ্তম শতকে সমগ্র আরব উপ দ্বীপে ইসলাম প্রসার লাভ করলে এ অঞ্চলও ইসলামের ছায়ায় চলে আসে।

১২ সেপ্টেম্বর ১৮৬৮ সালে মোহাম্মদ বিন থানি ব্রিটিশ দের সাথে একটি চুক্তি করেন।যার ফলে হাউজ অফ থানি দ্বারা কাতার ব্রিটিশদের হাতে শাসিত হয়ে আসছিলো । এরপর ১৯৭১ সালের ২ রা সেপ্টেম্বর ব্রিটিশদের

কাছ থেকএ পুরোপুরি স্বাধীনতা লাভ করে। প্রায় ১৫০ বছরের কাছাকাছি ইতিহাস আজও থানি কাতার পরিবার দ্বারা শাসিত। বিংশ শতাব্দীতে কাতারিদের প্রধান পেশা ছিলো মাছ ধরা।১৯৩৯ সালে সর্ব প্রথম তেলের খনি পাওয়া যায়।

কাতার তার মাটির নিচে খনিজ সম্পদের কারনে শক্তিশালী রাষ্ট্র হিসাবে পরিণত হয়েছে।

You may also like:

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *