Skip to content

জমির নকশা কোথায় পাওয়া যায় | অনলাইনে জমির নকশা দেখা

জমির নকশা কোথায় পাওয়া যায়: মৌজা ম্যাপ জমির নকশা ডাউনলোড করার নিয়ম

প্রিয় পাঠক, অনেকেই নিশ্চিত নন কোথায় জমির নকশা পাবেন। তাই অনেকেই গুগলে সার্চ করে থাকেন জমির নকশা বের করার নিয়ম বা মৌজা ম্যাপ জমির নকশা ডাউনলোড।

আজকের নিবন্ধে জমির নকশা কোথায় পাওয়া যায় এবং জমি সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হবে।

আমরা যদি নিবন্ধটি মনোযোগ সহকারে পড়ি তবে আপনি জমির নকশা এবং জমি সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য জানতে পারবেন। তাই জমি সংক্রান্ত বিষয়ে জানতে আমাদের সম্পূর্ণ নিবন্ধটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

জমির নকশা কোথায় পাওয়া যায়

জমির নকশা কিভাবে পাবো?

আমাদের প্রায় সবারই জমি বা জমি আছে। জমির গুরুত্বপূর্ণ দলিলের মধ্যে উল্লেখযোগ্য নথিগুলো হলো-

  • জমির দলিল
  • খতিয়ান ও পর্চা
  • জমির নকশা

অনেক সময় বিভিন্ন কারণে আপনার এই গুরুত্বপূর্ণ নথিগুলি হারিয়ে যেতে পারে বা চুরি হয়ে যেতে পারে।

কিন্তু জমির ক্ষেত্রে এসব দলিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও প্রয়োজনীয়। এই কাগজপত্র ছাড়া আপনি কখনই ব্যাংক থেকে টাকা তুলতে পারবেন না বা আপনার জমি বিক্রি করতে পারবেন না।

তাই এই সব জিনিস খুব সাবধানে রাখতে হবে এবং যারা এই সমস্ত জিনিস হারিয়েছেন, আজকের নিবন্ধে তাদের পুনরুদ্ধার করার সম্পূর্ণ তথ্য দেওয়া হবে।

খতিয়ান ও পর্চা

খতিয়ান হলো সেই কাগজ যাতে জমির মালিকের নাম, পিতার নাম, ঠিকানা, দাগ নং, জমির শ্রেণী, পরিমাণ, ভাগ খাজনা ইত্যাদি সঠিকভাবে জমির একাধিক কলামে লিপিবদ্ধ থাকে।

মূলত খতিয়ানে একটি মৌজায় যে কোনো এক মালিকের জমির বিবরণ থাকে।

আবার কিছু জমির ক্ষেত্রে খতিয়ানে একাধিক মালিকের বিবরণ থাকতে পারে।

এই লেখককে রেকর্ড অফ রাইটস (ROR) বলা হয়।

সিএম, এসএ, আরএস এর জন্য মাত্র 20 টাকা বা কোর্ট ফি দিতে হবে। সিটি জরিপের জন্য 100 টাকা খরচ করতে হবে।

আপনি চাইলে ইউনিয়ন ল্যান্ড অফিস বা তফসিল অফিস থেকে একটি খসড়া খতিয়ান পেতে পারেন।

আপনি আপনার হাতে যে ক্ষতিগুলি পাবেন তার কোনও আইনি মূল্য নেই। তবে, অফিস যদি খুব গুরুত্বপূর্ণ কারণে আপনার জমির খতিয়ান নম্বর না জানে তবে তারা আপনাকে আপনার খতিয়ান নম্বর বলে দেবে।

অফিসে খতিয়ান ও পর্চার বালাম বই আছে কিন্তু আপনি এই অফিস থেকে খতিয়ানের সার্টিফাইড কপি নিতে পারবেন না।

মূলত এ অফিসে জমির খাজনা ও ভূমি উন্নয়ন কর দিতে হয়।

আপনি কি ভূমি অফিস থেকে খতিয়ানের সার্টিফাইড কপি সংগ্রহ করতে পারবেন?

প্রিয় পাঠক, আপনি ভূমি অফিস থেকেও খতিয়ানের সত্যায়িত কপি সংগ্রহ করতে পারবেন না।

যদিও এ অফিসের মূল কাজ জমি রেজিস্ট্রি বা খারিজ করা।

তবে তারা আপনাকে আপনার খতিয়ান সার্টিফিকেট বা কোর্ট সার্টিফিকেট প্রদান করবে না।

আপনি যদি জেলা ডিসি অফিস কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেন তবে আপনি সেই অফিস থেকে আপনার খতিয়ান বা সার্টিফাইড কপি সংগ্রহ করতে পারেন।

এই অফিসে খতিয়ানকে অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হয়।

এছাড়াও আপনি সেটেলমেন্ট অফিস থেকে শুধুমাত্র নতুন রেকর্ড বা সার্ভে স্লিপ বা খতিয়ান পেতে পারেন।

এছাড়াও আপনি সেই অফিস থেকে নতুন রেকর্ড এবং ব্যাপক তথ্য পেতে পারেন।

জমির দলিল বা বায়া দলিল

আপনারা অনেকেই জানেন না কোথায় ল্যান্ড ডিড বা বায়া ডিড পাবেন। জমির দলিল বা দলিলের প্রত্যয়িত কপি বা ডুপ্লিকেট প্রধানত দুটি অফিস থেকে পাওয়া যেতে পারে।

  • জেলা রেজিস্ট্রি অফিস বা সদর রেকর্ড রুম অফিস
  • উপজেলা সাব রেজিস্ট্রি অফিস

আর নতুন দলিল রেজিস্ট্রি করতে চাইলে উপজেলা সাব রেজিস্ট্রি অফিস থেকে দলিল ও মূল দলিলের কপি পাবেন। কিন্তু আপনি এই অফিস থেকে পুরানো দলিল পিতার নথি পাবেন না।

আপনি আপনার পুরানো বা নতুন নথির প্রত্যয়িত কপি জেলা রেজিস্ট্রারের অফিস বা সদর দপ্তরের রেকর্ড রুম থেকে পেতে পারেন।

একটি নথি সঠিকভাবে না পাওয়া গেলে, আপনি অন্য কোন অফিস থেকে আপনার নথি পাবেন না।

নথি পুনরুদ্ধারের খরচ আপনার অনুলিপি খরচ উপর নির্ভর করবে অথবা আপনার স্থানীয় সিন্ডিকেটের উপর।

জমির নকশা বা মানচিত্র

অন্যান্য সকল গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের পাশাপাশি একটি বিষয় যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ তা হল ভূমি পরিকল্পনা বা মানচিত্র।

আপনার জমি বিক্রি করতে বা ব্যাংক থেকে টাকা তুলতে হলে আপনাকে জমির নকশা ও প্রদর্শন করতে হবে।

সেক্ষেত্রে জমির প্ল্যান বা ম্যাপ হারিয়ে গেলে এখন কোথায় পাব জানি।

মূলত আপনি দুটি জায়গায় জমির মানচিত্র বা নকশা পেতে পারেন।

  • জেলা ডিসি অফিস
  • ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর, ঢাকা।

আপনি জেলা ডিসি অফিস থেকে CS, SA, RS, BS যেকোনো ধরনের মৌজার মানচিত্র বা নকশা সংগ্রহ করতে পারেন।

এই নকশাটি পেতে আপনাকে একটি আবেদনপত্রের সাথে 20 টাকা এবং নগদ 500 টাকা কোর্ট ফি জমা দিতে হবে।

মূলত এই আপনার মোট খরচ।

আপনি ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর থেকে বাংলাদেশের যেকোনো স্থানের মৌজা মানচিত্র CS,SA,RS,BS, জেলা মানচিত্র, বাংলাদেশের মানচিত্র ডাউনলোড করতে পারেন।

সংক্ষেপে, আপনি এই অফিস থেকে বাংলাদেশের যেকোনো মানচিত্র পেতে পারেন।

মানচিত্র তৈরি করতে আবেদনপত্রের কোর্ট ফি ডিসিআর মোট ৫২০ টাকা।

মানচিত্র সংগ্রহ করতে সময় লাগে, আবেদনের তারিখ থেকে 2-5 দিনের মধ্যে মানচিত্র সংগ্রহ করা যেতে পারে।

জমির নকশা কোথায় পাওয়া যায় | অনলাইনে জমির নকশা দেখার নিয়ম

বর্তমানে বাংলাদেশের প্রায় সব অফিসিয়াল ডকুমেন্ট অনলাইনে বা ইন্টারনেটে পাওয়া যায়। অনলাইনে জমির নকশাও দেখা সম্ভব।

আপনি ঘরে বসেই আপনার জমির মানচিত্র বা নকশা দেখতে পারেন খুব সহজেই।

এখন আপনাকে পুরানো মানচিত্র বহন করতে হবে না, আপনি চাইলে আপনার মোবাইল থেকে মানচিত্রটি পরীক্ষা করতে পারেন।

জমির নকশা ডাউনলোড

জমির পরিকল্পনা ডাউনলোড করতে আপনাকে কিছু নিয়ম অনুসরণ করতে হবে। যেমন:

  • আপনি ডিজিটাল ল্যান্ড সার্ভিস মেনু থেকে মৌজা ম্যাপ অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন সিস্টেম দেখতে পারেন।
  • আপনি চাইলে সরাসরি মানচিত্র থেকে বিভাগ নির্বাচন করুন অথবা অন্যথায় আপনার জেলা নির্বাচন করুন।
  • আপনার মানচিত্রের ধরন নির্বাচন করুন।
  • এবার উপজেলা সার্কেল নির্বাচন করুন এবং আপনার এলাকার মৌজা নির্বাচন করুন।
  • একাধিক আসন থাকলে সেগুলি নির্বাচন করুন এবং অবশেষে অনুসন্ধান করুন।
  • ফলাফল আপনার সামনে আসবে এবং আপনি চাইলে একই প্রক্রিয়ায় সার্টিফাইড কপির জন্য আবেদন করতে পারবেন।

জমির নকশা কোথায় পাওয়া যায়?

আপনি দুটি জায়গায় জমির মানচিত্র বা নকশা পেতে পারেন।

  1. জেলা ডিসি অফিস
  2. ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর, ঢাকা।

জমির নকশা পেতে কত টাকা লাগে?

নকশা পেতে, আপনাকে একটি আবেদনপত্রের সাথে 20 টাকা এবং নগদ 500 টাকা কোর্ট ফি জমা দিতে হবে।

সর্বশেষ

সুপ্রিয় পাঠক, আমি আশা করি আমি আপনাকে আজকের নিবন্ধের মাধ্যমে কোথায় জমির প্লট এবং বিভিন্ন জমি সংক্রান্ত সমস্যা খুঁজে পেতে সাহায্য করতে সক্ষম হয়েছি।

আপনি যদি আমাদের নিবন্ধটি মনোযোগ সহকারে পড়েন তবে আপনি খুব সহজেই জমির বিন্যাসটি বের করতে সক্ষম হবেন।

যাইহোক, যদি এই বিষয়ে আপনার কোন প্রশ্ন বা মতামত থাকে, তাহলে অবশ্যই মন্তব্যের মাধ্যমে আমাদের জানিয়ে দিন।

আরও আর্টিকেল সমূহ-

Leave a Reply

Your email address will not be published.