Skip to content

পড়া মনে রাখার ১০ টি সহজ উপায় জেনে রাখুন

পড়া মনে রাখার উপায়: পড়ালেখা মুখস্থ করার সময় অনেকেই অভিযোগ করে থাকেন যে তাদের পড়া মনে থাকে না, অথবা পড়া মনে না থাকার কারণ কি?

তাছাড়া পড়া মুখস্থ করা আমাদের মত অনেক ছাত্রের জন্য কঠিন হতে পারে।

যেহেতু স্কুল, কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে একাধিক ক্লাস পড়া এবং মুখস্থ করা অনেকের জন্য হতাশাজনক হয়ে ওঠে।

এমতাবস্থায় অনেক শিক্ষার্থী মনে করে তাদের পড়াশোনা মনে রাখার শক্তি কম বা দুর্বল স্মৃতিশক্তি রয়েছে।

কিন্তু, তা মোটেও নয়!

পড়া মুখস্থ করা কেবলমাত্র শক্তিশালী স্মৃতিশক্তি নিয়ে জন্মগ্রহণকারী ব্যক্তিদের জন্য সহজ কাজ নয়।

বরং সঠিক মুখস্থ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে অধ্যয়ন করলে সহজেই যেকোন পড়া মনে রাখা সম্ভব।

অভিজ্ঞ বিজ্ঞানীদের মতে, ভিজ্যুয়ালাইজেশন কৌশল শিখে এবং স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধির কৌশল ব্যবহার করে তাৎক্ষণিকভাবে প্রচুর পরিমাণে তথ্য মনে রাখা সম্ভব।

গবেষণায় দেখা গেছে যে শিক্ষার্থীরা স্মৃতিবর্ধক কৌশল ব্যবহার করে তারা অন্যদের চেয়ে ভালোভাবে যা পড়ে তা মনে রাখতে পারে।

এই কৌশলগুলো আপনাকে আপনার স্মৃতিশক্তি উন্নত করতেও সাহায্য করে।

এই পদ্ধতিগুলো আপনাকে দীর্ঘ সময়ের জন্য তথ্য মনে রাখতে সাহায্য করে।

অবশেষে, এই ধরনের কৌশল বোধগম্যতা এবং উচ্চ ক্রম চিন্তা বাড়াতে পারে।

পড়া মনে রাখার সহজ ১০ টি উপায় জেনে রাখুন

পড়া মনে রাখার উপায়

পড়া মনে রাখার ১০ টি সহজ কৌশল।

ভিজ্যুয়াল এবং স্থানিক মেমরি বর্ধিতকরণ কৌশল ছাড়াও, আরও অনেক কৌশল রয়েছে যা আপনি আপনার মস্তিষ্ককে বিভিন্ন তথ্য মনে রাখতে সাহায্য করতে ব্যবহার করতে পারেন।

তাহলে চলুন পড়া মনে রাখার উপায় বা পড়া মনে রাখার ১০ টি সহজ কৌশল সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নেওয়া যাক।

১. প্রথমে তথ্যগুলো বোঝার চেষ্টা করুন

আপনি যে তথ্য গুলো ভালোমতো বুঝতে পারেন সেগুলো মুখস্থ করা বা শেখা আপনার কাছে অনেক সহজ হতে পারে।

তাই, কিছু না বুঝে মুখস্থ করার চেষ্টা না করে, প্রথমে সেই পড়াগুলোকে ভালো করে হৃদয় দিয়ে বোঝার চেষ্টা করুন।

তাহলে, দেখবেন পড়ার আগে বুঝতে পারলে সেই পড়াটি আপনি সহজেই মুখস্থ করতে পারবেন।

২. সংযোগ করার চেষ্টা করুন

আপনি যে পড়া মুখস্থ করেছেন তা আপনি ইতিমধ্যে জানেন এমন কিছুর সাথে সংযুক্ত করার চেষ্টা করুন।

বিভিন্ন ধারণাকে একত্রিত করে শেখার চেয়ে সম্পর্কহীন তথ্য মনে রাখা অনেক বেশি কঠিন।

তাই যদি আপনি আপনার নতুন পড়াগুলোকে কোনো তথ্যের সাথে সংযুক্ত করতে না পারেন, তাহলে একটি আলগা সংযোগ করার চেষ্টা করুন।

উদাহরণস্বরূপ, ধরুন আপনি এই তথ্যটি মনে করার চেষ্টা করছেন যে, পারদের স্ফুটনাঙ্ক 356.7° সেলসিয়াস।

এইবার, আপনার বাড়ির ল্যান্ডলাইনের শেষ চারটি সংখ্যাও 3567।

এই ক্ষেত্রে, আপনি আপনার ল্যান্ডলাইন ফোনটিকে ফুটন্ত পারদে ফেলে দেওয়ার কল্পনা করে এই দুটি সত্যের সমন্বয় সাধন করে মনে রাখতে পারেন।

এটি শুনতে অবাস্তব হতে পারে তবে এটি পড়া মনে রাখার জন্য যথেষ্ট কার্যকর।

৩. ঘুমানোর আগে পড়ুন

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে যে, ঘুমের সময় আমাদের মস্তিষ্ক তথ্য প্রক্রিয়াকরণ করে এবং সংরক্ষণ করে।

সুতরাং, ঘুমাতে যাওয়ার আগে, তথ্য পর্যালোচনা করার চেষ্টা করুন এবং আপনি দেখতে পাবেন যে, পড়াগুলো আপনার স্মৃতিতে রয়ে গেছে।

৪. নিজেকে পরীক্ষা করুন

আপনি যে তথ্য মনে রাখার চেষ্টা করছেন তা আরও ভালভাবে মনে রাখার জন্য নিজেকে পরীক্ষা করুন।

শুধু নোট বা পাঠ্যপুস্তক বারবার পড়ার পরিবর্তে, পড়া সম্পর্কিত কুইজের মতো নিজেকে প্রশ্ন করতে থাকুন।

শিক্ষার্থীরা দেখতে পায় যে তারা যা পড়ে তা বারবার পড়ে মনে রাখে।

কিন্তু, বারবার কিছু পড়ার পরিবর্তে, সেই পড়া সম্পর্কে নিজেকে প্রশ্ন করুন, এবং দেখুন সেই পড়ার কোন অংশগুলো আপনি মনে করতে পারেন না।

মেমরি ট্রিকস ব্যবহার করে পড়ার যে অংশগুলো আপনি মনে রাখতে পারবেন না তা পড়ার চেষ্টা করুন।

এছাড়াও, পড়া মুখস্থ করার জন্য কয়েক ঘন্টা বা দিন অপেক্ষা করুন, তারপর নিজেকে জিজ্ঞাসা করুন, যদি আপনার মনে থাকে, তবে আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনি পড়া মুখস্ত করেছেন।

৫. পড়াগুলো লেখার চেষ্টা করুন

লেখা আমাদের তথ্য ভালোভাবে মনে রাখতে সাহায্য করে।

কারণ, এতে আমাদের হাত ও মস্তিষ্কের মধ্যে সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে।

তাই ক্লাসে লেকচার শোনার সময় চলমান নোট লেখার চেষ্টা করুন।

এবং, ক্লাসের পরে সেই নোটগুলি পুনরায় লিখুন বা পুনর্বিন্যাস করুন।

আপনি যখন পড়া মনে রাখার চেষ্টা করছেন, বা পড়া লেখার চেষ্টা করছেন, তখন জোরে জোরে পড়ার চেষ্টা করুন এবং পড়াটি কল্পনা করুন।

৬. অর্থপূর্ণ গ্রুপ তৈরি করুন

পড়া মুখস্থ করার জন্য একটি ভাল কৌশল হচ্ছে অর্থপূর্ণ গ্রুপ তৈরি করা, যা তথ্যগুলো সহজ করতে পারে।

ধরুন, আপনি নোবেল গ্যাসগুলোর নাম যথাক্রমে নিয়ন (Ne), আর্গন (Ar), হিলিয়াম (He), রেডন (Rn), ওজোন (Og), ক্রিপ্টন (Kr) এবং জেনন (Xe) – এগুলো মুখস্থ করতে চান।

এইবার, আপনি NAH-ROKX নামে অভিনব শব্দ তৈরি করতে এই গ্যাস চিহ্নগুলির প্রতিটির প্রথম অক্ষর ব্যবহার করুন।

সুতরাং, এই শব্দগুলির একটি গ্রুপ গঠিত হয়, যাতে আপনি সহজেই পড়া মুখস্ত করতে পারেন।

৭. স্মৃতিবিদ্যা ব্যবহার করুন

স্মৃতিবিদ্যা এমন একটি কৌশল যা তথ্যকে স্মরণীয় করে তোলে।

উদাহরণস্বরূপ, মুঘল শাসকদের নাম মনে রাখার একটি জনপ্রিয় প্রবাদ আছে,

যেমন- বাবার (বাবর), হল (হুমায়ুন), আবার (আকবর), জ্বর (জাহাঙ্গীর), সরিল (শাহজাহান), ওষুধ (আওরঙ্গজেব)।

অথবা, সহজ অঙ্কের BODMAS (বন্ধনী, আদেশ, ভাগ, গুণ, যোগ, বিয়োগ) নিয়ম সম্পর্কেও চিন্তা করে দেখুন!

 ৮. নিজের সাথে কথা বলুন

এটি যতটা অদ্ভুত বলে মনে হতে পারে, পড়া মুখস্থ করার সময় নিজের সাথে কথা বলা কার্যকর পঠন তৈরি করার একটি উপায় হতে পারে।

পাঠগুলো হাইলাইট বা পুনরাবৃত্তি করার পরিবর্তে, নিজের সাথে উচ্চস্বরে পড়াগুলি নিয়ে আলোচনা করুন।

৯. একসাথে পড়ুন

বিজ্ঞানের সংজ্ঞাগুলো মুখস্থ করার পরে, একইসাথে কয়েকটি অংক করে নিয়ে, তারপরে ইতিহাসের ঐতিহাসিক তারিখ এবং ঘটনাগুলো মুখস্থ করার দিকে এগিয়ে যান।

এইভাবে, আপনার বিজ্ঞান, গণিত এবং ইতিহাস পড়ার মাধ্যমে বারবার যেতে থাকুন।

যদিও এই পদ্ধতিটি প্রথমে বিভ্রান্তিকর বলে মনে হতে পারে, আপনি একই ভাবে পড়লে পড়া তৈরি করা অনেক সহজ হয়ে যায়।

১০. পাঁচটি ইন্দ্রিয় দিয়ে পড়ুন

অধ্যয়নের সময় যতটা সম্ভব পাঁচটি ইন্দ্রিয় ব্যবহার করুন।

এটিতে, আপনি আপনার মস্তিষ্কের আরও অংশ ব্যবহার করতে পারেন এবং পড়াগুলি আরও ভালভাবে মনে রাখতে পারেন।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি শরীরের গঠন সম্পর্কে পড়ছেন, তাহলে শারীরবৃত্তির মডেলগুলো নিন এবং প্রতিটি অংশ অনুভব করুন এবং তাদের নামগুলো উচ্চস্বরে মুখস্থ করুন।

এগুলো ছাড়াও ব্যায়াম আপনার মস্তিষ্কের স্মৃতিশক্তি বাড়ায়।

ফলস্বরূপ, আপনি সহজেই আপনার পড়া মুখস্ত করতে পারেন।

এমনকি ছবি, গান আপনার মস্তিষ্কের ডান দিক ব্যবহার করতে পারে যা আপনাকে সমীকরণ এবং তালিকার মতো জটিল জিনিসগুলো মনে রাখতে সাহায্য করতে পারে।

আমাদের আজকের পড়া মনে রাখার উপায় সম্পর্কে আর্টিকেলটি এখানেই শেষ করছি।

আর্টিকেলটি ভালো লাগলে নিচে কমেন্ট করে জানাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.