Skip to content

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা কোনগুলো – (সেরা ২৬টি)

আপনি যদি ব্যবসা করা পরিকল্পনা করে থাকেন, তাহলে আপনি অবশ্যই এই প্রশ্নটির উত্তর খুঁজে থাকবেন যে, বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা কোনটি?

তাই বর্তমানে কোন ব্যবসা সবচেয়ে বেশি লাভজনক এই বিষয়ে আজকের আর্টিকেলে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

এমনিতে যেকোন ধরনের ব্যবসাই যদি সঠিক পরিকল্পনা বা planning এর মাধ্যমে শুরু করা হয়, তাহলে সেই business এর সফলতা পেতে তেমন বেশি সময় লাগতে পারে না।

এছাড়াও একটি successfull business গড়ে তুলতে হলে আপনার মাঝে অবশ্যই কিছু creative চিন্তা-ভাবনা থাকতে হবে এবং প্রচুর ধৈর্য্য সহকারে কাজ করে যেতে হবে।

মনে রাখবেন, কোন ব্যবসাতে রাতারাতি সফলতা অর্জন করা সম্ভব নয়।

তাহলে চলুন কিছু লাভজনক ব্যবসা আইডিয়ার বিষয়ে নিচে আমরা জেনে নিই।

বাংলাদেশে এমন অনেক ভালো বিজনেস আইডিয়া রয়েছে, যেগুলো আপনাকে ভালো মুনাফা অর্জনে সাহায্য করতে পারে।

প্রাথমিকভাবে বাংলাদেশ হলো একটি কৃষিপ্রধান দেশ। তাই কৃষিভিত্তিক যে ব্যবসার আইডিয়া গুলো রয়েছে, এগুলো আপনাকে দ্রুত একজন সফল ব্যবসায়ী হতে সাহায্য করতে পারে এবং প্রচুর লাভের সম্ভাবনা থাকে।

আর নিচে আমি যে business idea গুলোর বিষয়ে আপনাদের বলতে চলেছি, এগুলো আগেও লাভজনক ব্যবসা (profitable business) হিসেবে ছিল এবং এখনও এই ব্যবসা গুলো অধিক লাভজনক হিসেবে রয়েছে।

তাই আপনি এগুলোর মধ্যে আপনার পছন্দমত যেকোন একটি ব্যবসা শুরু করার চিন্তা ভাবনা করতে পারেন।

তাহলে চলুন জেনে নিই, বাংলাদেশে বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া কোনগুলো?

সেরা ২৬টি বর্তমানে সবেচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা

Profitable business ideas in Bangladesh.

এখানে ব্যবসা আইডিয়া গুলোর একটি তালিকা দেওয়া হলো যেগুলোতে তেমন বেশি পরিমানে টাকা invest করতে হয় না এবং এগুলো অধিক পরিমাণে লাভ generate করতে পারে।

26 most profitable business ideas in Bangladesh.

  1. Fast food shop
  2. Blogging business
  3. Salon business in Bangladesh
  4. Do small tasks online
  5. Coffee shop
  6. Cosmetics shop
  7. Garment business in Bangladesh
  8. Furniture shop
  9. Photography
  10. Virtual trade business
  11. Electronic product shop
  12. E-commerce business
  13. Start a YouTube channel
  14. Mobile phone & mobile phone accessories
  15. Coaching and sopken English class
  16. Courier service
  17. Digital marketing agency
  18. Affiliate marketing business
  19. Drop shipping business
  20. Mobile repairing business
  21. Restaurant business
  22. Poultry eggs
  23. Poultry broiler
  24. Fishery
  25. Goat farming
  26. Vegetable farming

তাহলে চলুন নিচে এসব ব্যবসার বিষয়ে এক এক করে জেনে নিই।

1. Fast food shop

যেকোন দেশের লোকেরা ভালো ভালো খাবার খেতে অধিক পছন্দ করে থাকেন। তাছাড়া সুস্বাদু খাবার যেমন ফাস্ট ফুডের প্রতি মানুষের আলাদা এক প্রকারের চাহিদা বা রুচি রয়েছে।

বিশেষ করে ঢাকা কিংবা চট্টগ্রামে ফাস্ট ফুডের অধিক চাহিদা রয়েছে।

তাই বাংলাদেশে একটি fast food store শুরু করা খুবই লাভজনক হতে পারে।

এক্ষেত্রে food store এর অবস্থানের উপর ব্যবসার লাভ খানিকটা নির্ভর করে থাকে।

ফাস্ট ফুডের দোকান অফিস এলাকায় অথবা জনপ্রিয় আবাসিক এলাকায় হলে বেশি ভালো হয়।

এর পাশাপাশি, আপনার ফাস্ট ফুডের গুণগত মান ভালো রাখার চেষ্টা করতে হবে। সাথে দ্রুত এবং যথাযথ পরিষেবা নিশ্চিত করার চেষ্টা করতে হবে।

আপনি যদি ফাস্ট ফুডের বিজনেস সঠিকভাবে চালিয়ে যেতে পারেন, তাহলে এখান থেকে আপনি প্রচুর লাভ পেতে পারেন।

2. Blogging business

লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া

বাংলাদেশে বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা গুলোর মধ্যে ব্লগিং অন্যতম একটি।

এই কাজের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো এই যে, আপনাকে অন্য কোথাও গিয়ে কাজ করতে হবে না। ঘরে বসে কম্পিউটার, ল্যাপটপ অথবা মোবাইল ফোনে ইন্টারনেটের মাধ্যমে করতে পারবেন।

বাংলাদেশে এমন অনেক সফল ব্লগার রয়েছেন, যারা কেবল ব্লগিং করার মাধ্যমে ঘরে বসে প্রতি মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছেন।

এজন্য আপনাকে প্রথমে ইন্টারনেটে ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনে নিয়ে একটি ওয়েবসাইট/ব্লগ তৈরি করতে হবে। আপনি চাইলে কোন খরচ করা ছাড়াই ফ্রীতে ব্লগ তৈরি করতে পারেন।

এরপর আপনার ব্লগে কনটেন্ট বা আর্টিকেল publish করতে হবে।

আপনার যে বিষয়ের উপর ভালো experience এবং knowledge রয়েছে, সে বিষয়ের উপর আপনার ব্লগে লেখালেখি করতে পারেন। তা হতে পারে, beauty, health, technology, education ইত্যাদি।

যখন আপনি আপনার ভালো ভালো কনটেন্ট লিখতে থাকবেন, তখন সেসব কনটেন্টে google search অথবা social media sites থেকে traffic আসতে শুরু করবে।

যখন আপনার ব্লগে ভালো পরিমাণে ট্রাফিক/রিডার প্রতিদিন আসতে থাকবেন এবং আপনার লিখা কনটেন্ট পড়তে থাকবেন, তখন আপনি গুগল এডসেন্স এর edvertisements দেখিয়ে ব্লগ থেকে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

ঘরে বসে ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা যায় বলে ব্লগিং বর্তমানে একটি profitable বিজনেসে পরিণত হয়েছে। ফলে বর্তমানে প্রত্যেকেই blogging এর বিষয়ে ভালোভাবে জানতে চাইছেন এবং blog শুরু করার কথা ভাবছেন।

মনে রাখবেন, ব্লগিং এমন একটি কাজ যা সঠিকভাবে করতে পারলে এবং সফলতা পেলে এই ব্যবসা আপনার জীবনকে বদলে দিতে পারে।

3. Start salon business in Bangladesh

আপনার যদি সৌন্দর্য এবং সাস্থসেবার প্রতি অনুরাগ থাকে, তাহলে আপনি সেলুন ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

এই ব্যবসায় লাভের সম্ভাবনা প্রচুর রয়েছে, কেননা এখানে গ্রাহকের সংখ্যা অনেক বেশি রয়েছে। আপনি এই ব্যবসার মাধ্যমে বিভিন্ন বয়েসের লোকদের আকৃষ্ট করতে পারেন।

যদিও আগে কেবল উচ্চ শ্রেনির লোকরা সেলুনে গিয়ে তাদের চুল কাটতেন অথবা চুলের সৌন্দর্য বাড়িয়ে নিতেন, তবে বর্তমানে সমাজের সকল শ্রেণির পুরুষ এবং মহিলারা তাদের চুল কাটার জন্য এবং চুলের সৌন্দর্যের জন্য সেলুন গুলোতে গিয়ে থাকেন।

ঢাকায় অনেক গুলো সেলুন রয়েছে। আপনি চট্টগ্রাম, সিলেট এবং কক্সবাজারে এই ব্যবসা শুরু করার কথা ভাবতে পারেন।

মনে রাখবেন, আপনি যত ভালোভাবে কাজ করতে পারবেন তত বেশি পরিমাণে গ্রাহক আপনি পেতে পারবেন। এজন্য সম্পূর্ণ নিখুতভাবে কাজ করার চেষ্টা করতে হবে এবং ভালোভাবে ট্রেনিং নিয়ে নিতে হবে।

4. Do small tasks online

আপনি কি কখনো এটা ভেবে দেখেছেন যে, কম্পিউটার এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে part-time ছোট ছোট কাজ করে আপনি টাকা ইনকাম করতে পারেন।

হ্যা অবশ্যই, অনলাইনে অন্যদের কাজ করার মাধ্যমে টাকা ইনকাম করা যায়। আপনি ফ্রিল্যান্সিং অথবা আউটসোর্সিং এই নাম গুলো আগে অবশ্যই শুনে থাকবেন।

এগুলো হলো এমন একটি প্রক্রিয়া, যার মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সাররা অন্য দেশের clients দের ইন্টারনেট রেলাটেড কাজ করে দেওয়ার মাধ্যমে টাকা আয় করে থাকেন।

ঘরে বসে অনলাইনে part-time কাজ করে আয় করার জন্য এটা অনেক জনপ্রিয় এবং পরিচিত একটি মাধ্যম। এই প্রক্রিয়াতে অধিকাংশ students তাদের পড়ালেখার পাশাপাশি ইন্টারনেট থেকে কিছু টাকা ইনকাম করছেন।

ছোট ছোট কাজ পাওয়ার জন্য যেসকল ওয়েবসাইট রয়েছে সেগুলো হলো fiverr, upwork, peopleperhour, freelancer ইত্যাদি।

তবে মনে রাখবেন, এই সব সাইটে শুধু একাউন্ট তৈরি করলেই আপনি কাজ পেয়ে যাবেন না বা কাজ করতে পারবেন না, এজন্য আপনাকে অনলাইন রিলেটেড কাজ গুলো জানতে হবে এবং করতে পারতে হবে।

যেমন এগুলোতে যে কাজ গুলো করা হয়ে থাকে, সেগুলোর একটা ছোট উদাহরণ যদি আমি বলি, মনে করুন, একটা বিদেশি কোম্পানি তাদের ব্রান্ডের একটা logo আপনার কাছ থেকে ডিজাইন করে নিবে এবং এজন্য তারা আপনাকে টাকা দেবে।

তো এজন্য আপনাকে অবশ্যই এই লোগো ডিজাইনের কাজ জানতে হবে।

তাছাড়া আপনি এই কাজ করতে পারবেন না। এরকম কম্পিউটার এবং ইন্টারনেটের সাথে জড়িত প্রচুর কাজ রয়েছে যেগুলো আপনি করতে পারেন।

যেমন, ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, কনটেন্ট রাইটিং ইত্যাদি।

5. Coffee shop

বাংলাদেশে অফিসিয়াল মিটিং বা অবসর সময়ে গরম পানীয় হিসেবে কফির চাহিদা আগের বছর গুলোর চেয়ে অধিক বেড়ে গিয়েছে।

এখন তরুণরাও কফি শপে গিয়ে কফি খেতে পছন্দ করে থাকে।

তরুণ থেকে শুরু করে যুবক এবং সমাজের সকল মানুষের কফির প্রতি আলাদা একটা আকর্ষণ বা চাহিদা রয়েছে এবং তারা এটাকে ভীষণ পছন্দ করে থাকে।

তাই আপনি যদি বাংলাদেশে একটি কফি শপের বিজনেস চালু করেন এবং সঠিকভাবে এটাকে চালিয়ে যেতে পারেন তাহলে প্রচুর লাভবান হতে পারবেন।

তবে কফি শপ স্থাপনের আগে একটি ভালো জায়গা সিলেক্ট করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

যেমন, অফিস বা পার্কের কাছাকাছি, শপিং মল বা কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাছাকাছি কফি শপ তৈরি করলে বেশি পরিমাণে গ্রাহক পাওয়ার সুযোগ অবশ্যই থাকে।

6. Cosmetics shop

বাংলাদেশে cosmetics বা প্রসাধনী শিল্প খুব তাড়াতাড়ি বিকাশ লাভ করছে। বেশিরভাগ শহুরে মেয়েরা এক বা একের অধিক ধরনের প্রসাধনী ব্যবহার করে থাকেন নিজের সৌন্দর্যের জন্য।

বাংলাদেশের মতো একটি বিশাল জনসংখ্যার দেশে প্রসাধনীর চাহিদা প্রচুর পরিমাণে রয়েছে।

তাই আপনি যদি ভালো এবং লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া গুলো খুজছেন, তাহলে কসমেটিকস বিজনেস এর কথা ভাবতে পারেন।

আপনি স্থানীয়ভাবে তৈরি করা অথবা আমদানি করা উভয় ধরনের প্রসাধনী বিক্রি করতে পারেন। তবে আমদানি করা প্রসাধনী অবশ্যই ব্যয়বহুল।

অনলাইনে সকল প্রকার প্রসাধনী বিক্রি করে এমন একটি প্রসাধনী দোকান আপনি বেছে নিতে পারেন।

তাছাড়া আপনি যদি কসমেটিকস ব্যবসার বিষয়ে আরও ভালোভাবে জানতে চান তাহলে গুগলে সার্চ করার মাধ্যমে সবকিছু জেনে নিতে পারেন।

7. Start a garment business in Bangladesh

বাংলাদেশে পৃথিবীব্যাপী পোশাক রপ্তানিকারক দেশ গুলোর মধ্যে প্রথম অবস্থানে রয়েছে।

তাই এখানে পোশাকের ব্যবসা অত্যন্ত লাভজনক। তৈরি পোশাকের পাশাপাশি পোশাক খাত উভয়ই দেশের অর্থনীতিতে ব্যপক অবদান রাখে।

এজন্যই গার্মেন্টস ব্যবসায় প্রচুর লাভ রয়েছে এবং এটি বাংলাদেশে একটি লাভজনক ব্যবসা হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে। এই ব্যবসা শুরু করার আগে গার্মেন্টস এবং এর ব্যবসায়িক দিক গুলো সম্পর্কে ভালোভাবে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করলে অধিক ভালো হয়।

একটি গার্মেন্টস স্টোর ছাড়াও আপনি গার্মেন্টস এর কাচামাল এবং পোশাক তৈরির জন্য প্রয়োজনীয় জিনিস গুলো যেমন: সুই, বোতাম, পিন, জিপ ইত্যাদির মতো জিনিসপত্রের ব্যবসাও করতে পারেন। আপনি অনলাইনেও এই ব্যবসা করতে পারেন।

8. Furniture shop

বাংলাদেশের মানুষ বিভিন্ন ধরনের আসবাবপত্র বিশেষ করে কাঠের আসবাবপত্র গুলো অধিক পছন্দ করে থাকে।

এজন্য বাড়িঘর সাজাতে আমাদের দেশে কাঠের আসবাবপত্রের প্রচুর চাহিদা রয়েছে।

এই কারণে বাংলাদেশে আসবাবপত্র তৈরি অথবা আসবাবপত্রের দোকান একটি ভালো এবং লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া হিসেবে প্রমাণিত হতে পারে।

আপনি যদি নিজে ফার্নিচার বানাতে পারেন তাহলে খুব ভালো হয়। এই কাজ যদি আপনি নিজে করতে না পারেন তাহলেও কোন সমস্যা নেই। তবে এক্ষেত্রে আপনার ফার্নিচারের গুণগত মানের দিকে অবশ্যই নজর দিতে হবে।

যদি আপনি উন্নত মানের ফার্নিচার প্রস্তুত করতে পারেন তাহলে লোকজন আপনার প্রোডাক্ট গুলো অধিক পছন্দ করে থাকেন।

আপনি ফার্নিচার বিক্রি করার এই ব্যবসা অনলাইনের মাধ্যমেও করতে পারেন।

9. Photography

বাংলাদেশের প্রচুর জনসংখ্যার স্কুল বা কলেজে ভর্তি থেকে শুরু করে বিভিন্ন পারিবারিক ছবি, এছাড়া কর্পোরেট অনুষ্ঠান থেকে বিয়ের অনুষ্ঠান পর্যন্ত বিভিন্ন ধরনের ছবি প্রয়োজন হয়ে থাকে।

বিয়ের ক্ষেত্রে ফটোগ্রাফার এর প্রচুর চাহিদা রয়েছে। আপনি যদি একজন ভালো photographer হয়ে থাকেন এবং ভালো ভালো ফটো তুলতে পারেন, তাহলে এটি আপনার জন্য বাংলাদেশে একটি ভালো ব্যবসা আইডিয়া হতে পারে।

আপনি যে ভালো এবং আকর্ষণীয় ছবি তুলতে পারেন এ বিষয়ে লোকজনদের জানানোর জন্য আপনি ফেসবুক অথবা ইনস্টাগ্রামে আপনার কাজের এবং শ্রেষ্টত্বের বিষয়ে বিজ্ঞাপন প্রচার করতে পারেন।

ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রে আপনার সৃজনশীলতা আপনাকে ভালো পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে সাহায্য করতে পারে।

10. Virtual trade business

ইন্টারনেটের ব্যবহার বৃদ্ধির সাথে সাথে বাংলাদেশে ভার্চুয়াল ট্রেডিং দিন দিন অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

আপনার যদি একটি ভালো যোগাযোগ নেটওয়ার্ক থাকে এবং যদি আপনি কিছু বিশ্বস্ত মানুষদের নিয়ে একটি টিম তৈরি করতে পারেন তাহলে এই ব্যবসার আইডিয়া আপনার জন্য অধিক লাভজনক হতে পারে।

ভার্চুয়াল ট্রেড ব্যবসাটি কেমন হতে পারে এ বিষয়ে আমি একটি উদাহরণ দিয়ে আপনাদের বুঝিয়ে দিচ্ছি,

ধরুন, বাংলাদেশের যেসকল জেলায় ফসলের উৎপাদন বেশি এবং মূল্য তুলনামূলক কম, সেসব জেলা থেকে আপনি কম দামে ফসল কিনে নিতে পারেন এবং যে জায়গায় এগুলোর দাম বেশি সেখানে বিক্রি করতে পারেন।

চাল, ভুট্টা, গবাদি পশু, মাংস এই উপাদান গুলোর মাধ্যমে ভার্চুয়াল ট্রেড বিজনেস করা যেতে পারে।

মনে রাখবেন, এই ব্যবসা করতে হলে, আপনাকে দ্রব্যের মূল্যের উপর নিবিড় নজর রাখতে হবে এবং সেগুলো সঠিক দামে বিক্রি করতে হবে। তাহলেই আপনি অধিক লাভবান হতে সক্ষম হবেন।

এই ব্যবসা আপনি ইন্টারনেটের মাধ্যমে করতে পারবেন।

11. Electronic product shop

প্রযুক্তির ব্যাপক উন্নতির কারণে বিশ্বব্যাপী বৈদ্যুতিক এবং ইলেকট্রনিক পণ্যের চাহিদা বেড়ে গিয়েছে। বাংলাদেশেও বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক পণ্য গুলোর অনেক চাহিদা রয়েছে।

তাই বাংলাদেশে ইলেক্ট্রনিক পণ্যের দোকান একটি লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া হয়ে উঠতে পারে।

আপনি আপনার দোকানে টেলিভিশন, রেফ্রিজারেটর, এয়ার কন্ডিশনার এবং ওয়াশিং মেশিন, কম্পিউটার, ল্যাপটপ, ট্যাবলেট ইত্যাদির মতো বিভিন্ন ইলেকট্রনিক পণ্য গুলো বিক্রি করতে পারেন।

এক্ষেত্রে নামকরা কোম্পানির ডিলারশিপ নিতে পারেন। এই ব্যবসায় সাফল্যের জন্য আপনার দোকানের একটি ভালো জায়গা বেছে নেওয়া খুবই জরুরি।

12. E-commerce business

বর্তমানে কোন ব্যবসায় লাভ বেশি

বাংলাদেশে ই কমার্স ব্যবসা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইন্টারনেট প্রযুক্তির বিকাশের ফলে এবং জীবনের সকল ক্ষেত্রে ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার বৃদ্ধির ফলে বাংলাদেশে ই কমার্স একটি সম্ভাবনাময় ব্যবসায়িক ক্ষেত্র হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ই কমার্স হলো এমন এক ধরনের বিজনেস আইডিয়া যা ইন্টারনেটের মাধ্যমে সমগ্র দেশব্যাপী ব্যবসা পরিচালনা করা সম্ভব।

আপনি আপনার যেকোন পণ্য বিক্রি করার জন্য ইকমার্সকে বেছে নিতে পারেন।

ই কমার্সের মাধ্যমে অনলাইনের মাধ্যমে পণ্য ক্রয় বিক্রয় করা যায়।

আপনি ই-কমার্সের মাধ্যমে বিভিন্ন আইটেম বিক্রি করতে পারেন ও কিনতে পারেন এবং অর্থ প্রদানও করতে পারেন। তবে এই ব্যবসা করার আগে আপনাকে ইকমার্স প্লাটফর্মের বিষয়ে সম্পূর্ণ তথ্য ভালোভাবে জেনে নিতে হবে।

13. Start a YouTube channel

আপনি এটা অবশ্যই জেনে থাকবেন যে, বর্তমানে ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও upload করার মাধ্যমে লোকেরা প্রচুর টাকা ইনকাম করছেন।

কোন ধরনের ইনভেস্টমেন্ট ছাড়াই ঘরে বসে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার সহজ এবং সেরা উপায় হলো ইউটিউব চ্যানেল।

ইউটিউব চ্যানেল খুলে সেখানে ভিডিও আপলোড করার কাজটি বাংলাদেশের অনেকই করছেন এবং বাংলাদেশের এমন কিছু সফল ভিডিও ক্রিয়েটর রয়েছেন, যারা প্রতি মাসে কেবল ইউটিউব থেকে লক্ষাধিক টাকা আয় করছেন।

এজন্য আপনাকে প্রথমে একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে হবে। কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল খুলতে হয় এ বিষয়ে আমি আগেই আপনাদের বলেছি।

ইউটিউব চ্যানেল খোলার পর আপনাকে নিয়মিত চ্যানলে ভিডিও আপলোড করতে হবে।

আপনি যে বিষয়ে ভালো জানেন, সে বিষয় নিয়ে ভিডিও বানিয়ে ইউটিউবে আপলোড করতে পারেন। ইউটিউবে কোন কোন বিষয়ে ভিডিও তৈরি করলে ভালো হবে এ বিষয়েও আমি আগের আর্টিকেলে আপনাদের বলেছি।

এরপর যখন লোকেরা আপনার ভিডিও গুলো দেখবেন, তখন আপনার চ্যানেলে ধীরে ধীরে subscribers এবং views বেড়ে যাবে।

যখন প্রচুর পরিমাণে লোকেরা আপনার চ্যানেলকে subscribe করবেন, তখন বিভিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আপনি ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

যেমন, ইউটিউব চ্যানেল থেকে গুগল এডসেন্স এবং এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে সহজেই টাকা ইনকাম করা যায়।

14. Mobile phone and mobile accessories

বাংলাদেশে মোবাইল এবং স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের সংখ্যা দিন দিন প্রচুর পরিমাণে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই কারণে আমাদের দেশে মোবাইল ফোনের দোকানের চাহিদা অনেক বেশি রয়েছে।

তাই আপনি মোবাইল ফোন বিক্রি করার জন্য একটি মোবাইল ফোনের দোকান শুরু করতে পারেন।

আপনার মোবাইল ফোনের দোকানের বিজ্ঞাপন অনলাইনে প্রচার করতে পারেন। আপনার মোবাইল দোকানের সাথে মোবাইল ফোন রিপেয়ারিং এর কাজের জন্য একটি আলাদা অংশের ব্যবস্থা করতে পারেন।

এছাড়াও আপনার দোকানে মোবাইল ফোনের সাথে জড়িত প্রোডাক্ট গুলো যেমন, ইয়ারফোন, মোবাইল চার্জার, ব্যাক কভার ইত্যাদি রাখতে পারেন। এতে আপনি অনেক বেশি গ্রাহক পেতে পারবেন এবং অধিক লাভবান হতে পারবেন।

15. Coaching and spoken English classes

বাংলাদেশে শিক্ষার্থীদের সঠিক নির্দেশনা প্রদান করা এবং তাদের শেখানোর মাধ্যমে ভালোভাবে গড়ে তোলার কাজের চাহিদা অনেক বেশি।

তাই আপনার যদি ইংরেজি এর বিষয়ে academic background ভালো থাকে এবং আপনি ইংরেজিতে ভালোভাবে কথা বলতে পারেন, তাহলে আপনি একটি কোচিং অথবা Spoken English Class এর কথা ভাবতে পারেন।

এই শিক্ষাদানের কাজটি আপনি প্রথমে বাড়িতে শুরু করতে পারেন এরপর কোচিং সেন্টার এর জন্য একটু আলাদা রুমের ব্যবস্থা করতে পারেন বা ভাড়া নিতে পারেন। এছাড়া প্রয়োজনমত অন্যান্য শিক্ষকদেরকেও নিয়োগ করতে পারেন।

16. Courier service

আপনারা অবশ্যই এটা জানেন যে, বাংলাদেশে অনলাইনের মাধ্যমে যেকোন পণ্য কেনা বেচা অনেক বেড়ে গিয়েছে।

এখন লোকেরা ঘরে বসে তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ইন্টারনেটে অর্ডার করেন এবং এগুলো তারা হাতের কাছে পেতে পছন্দ করে থাকেন।

অনলাইনের মাধ্যমে ক্রয়কৃত বিভিন্ন প্রোডাক্ট গুলো কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে ডেলিভারি করা হয়ে থাকে।

যেহেতু দিন দিন অনলাইন শপিং এর চাহিদা বেড়েই চলেছে তাই বাংলাদেশে কুরিয়ার সার্ভিসের প্রয়োজনীয়তাও দিন দিন বেড়ে চলছে।

সুতরাং আপনি এই কুরিয়ার সার্ভিসের ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এই ব্যবসা করতে হলে আপনাকে এর বিষয়ে আগে ভালোভাবে জেনে নিতে হবে এবং এর জন্য অনেক কিছুর প্রয়োজন রয়েছে।

যেমন, আপনাকে অফিসের জন্য একটি ভালো জায়গা বেছে নিতে হবে, ডেলিভারির কাজের জন্য ভালো কর্মচারী নিয়োগ করতে হবে, ভ্যানের ব্যবস্থা করতে হবে এবং আপনার ব্যবসাকে promote করার জন্য ভালোভাবে এর মার্কেটিং করতে হবে।

এটি বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া গুলোর মধ্যে ভালো একটি ব্যবসার আইডিয়া।

17. Digital marketing agency

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা কোনটি

বর্তমানে ছোট বড় যেকোন কোম্পানি তাদের ব্যবসার মার্কেটিং ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনলাইনে করে থাকেন।

যেহেতু ইন্টারনেটে সবসময় কোটি কোটি মানুষ সক্রিয় থাকেন, তাই যেকোন product, brand বা কোম্পানির মার্কেটিং করার জন্য অনলাইন মার্কেটিং বা ডিজিটাল মার্কেটিং এর প্রচুর গুরুত্ব রয়েছে।

তাই যেসকল digital marketing agency গুলো বর্তমানে রয়েছে, তাদের মাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানি গুলো তাদের ব্যবসার প্রচার করার জন্য মার্কেটিং এর কাজ করিয়ে নিয়ে থাকেন।

আর মার্কেটিং কাজটি করার জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং এজেন্সী গুলো বিভিন্ন কোম্পানি বা ক্লায়েন্টদের থেকে প্রচুর টাকা গ্রহণ করে থাকেন।

তাই আপনি একটি ডিজিটাল মার্কেটিং এজেন্সী দিতে পারেন এবং এই লাভজনক ব্যবসার সুযোগ নিতে পারেন।

18. Affiliate marketing business

ঘরে বসে কম্পিউটার এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা যায় এমন বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা গুলোর মাধ্যমে এফিলিয়েট মার্কেটিং সেরা একটি business idea.

অনলাইনে যে e-commerce ওয়েবসাইট গুলো রয়েছে, তাদের প্রত্যেকটি affiliate program নামে একটি আলাদা প্রোগ্রাম রয়েছে এ বিষয়ে আমরা জানি।

যেকেউ তাদের এই affiliate program গুলোতে join করার মাধ্যমে সেই ওয়েবসাইটের product বা service বিক্রি করিয়ে দিতে পারেন। এর বিনিময়ে বিক্রয় করা প্রোডাক্টের উপর কমিশন হিসেবে কিছু টাকা affiliate marketer পেয়ে থাকেন।

তাই আপনি এই সব এফিলিয়েট প্রোগ্রামে join করে তাদের product বা service বিক্রি করিয়ে commission income এর মাধ্যমে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারেন।

অনলাইনে বিভিন্ন ওয়েবসাইটের এফিলিয়েট নেটওয়ার্ক রয়েছে। যেমন, amazon, eBay, Flipkart, digistore24 ইত্যাদি।

যেহেতু এই প্রক্রিয়াটি সম্পুর্ণ অনলাইনের মাধ্যমে করা হয়ে থাকে, তাই এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে product sale করার জন্য আপনার যেকোন online platform এর প্রয়োজন হবে।

যেমন, আপনি অনলাইন ব্লগ, ইউটিউব চ্যানেল, সোশ্যাল মিডিয়া পেজ, ওয়েবসাইট এগুলার মাধ্যমে এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারেন।

মনে রাখবেন, কেবল এফিলিয়েট মার্কেটিং করে হাজার হাজার লোকেরা প্রতি মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছেন ঘরে বসেই।

তাই অবশ্যই এই কাজটি লাভজনক। এজন্য আপনাকে এফিলিয়েট মার্কেটিং এর সকল বিষয়ে ভালোভাবে জেনে নিতে হবে এবং আপনার কিছু বিষয়ে অবশ্যই দক্ষ হতে হবে।

19. Dropshipping business

অনলাইন ড্রপ শিপিং ব্যবসা বাংলাদেশে অনেক জনপ্রিয়তা অর্জন করতে শুরু করেছে।

এই ব্যবসাটি এমন এক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে করা হয়, যার জন্য আপনাকে আগে থেকেই কোন পণ্য বিক্রি করার জন্য stock করে রাখতে হয় না।

এক্ষেত্রে আপনার একটি নিজের ই কমার্স ওয়েবসাইট থাকতে হবে এবং সেখানে বিভিন্ন প্রোডাক্ট সাজানো থাকবে। এরপর মার্কেটিং করার মাধ্যমে আপনার সেই ইকমার্স ওয়েবসাইটে পণ্যের অর্ডার নিতে হবে।

যখন আপনি পণ্যের অর্ডার পাবেন তখন third party ড্রপ শিপিং কোম্পানি নিজে থেকেই সেই পণ্য ডেলিভারি করে দিবেন।

এই ব্যবসার ক্ষেত্রে সকল product stock রাখা থাকে একটি drop shipping কোম্পানির কাছে।

যেকোন প্রোডাক্ট বিক্রি করার জন্য সেই কোম্পানি থেকে পণ্যটি আপনাকে কিনে নিতে হয় না।

20. Mobile repairing business

আপনি এই ব্যবসাটির বিষয়ে অবশ্যই আগে থেকেই জানেন। যেহেতু বর্তমানে প্রতিটি মানুষ মোবাইল ফোন ব্যবহার করে থাকেন এবং দিন দিন মোবাইল ব্যবহাকারীর সংখ্যা বেড়ে চলছে তাই এই ব্যবসাতে প্রচুর গ্রাহক পাওয়ার সম্ভাবনা অবশ্যই রয়েছে।

ইতোমধ্যে যারা এই ব্যবসাতে নিয়োজিত রয়েছেন তারা কিন্তু প্রতিদিন ভালো পরিমাণে টাকা ইনকাম করছেন।

মোবাইল রিপেয়ারিং এর ব্যবসা করার জন্য প্রথমে আপনাকে কয়েক মাস ভালোভাবে training নিতে হবে এই কাজের উপর। যখন আপনি সকল কাজ ভালোভাবে শিখে যাবেন এবং করতে পারবেন তখন আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

তবে এই ব্যবসার জন্য জায়গা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আপনার কাজের দোকানের জন্য অবশ্যই ভালো একটি জায়গা বেছে নিতে হবে।

এরপর যখন গ্রাহকরা তাদের মোবাইলের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের জন্য আপনার কাছে আসবেন, তখন তা রিপেয়ার করার মাধ্যমে ভালো পরিমাণে টাকা তাদের কাছ থেকে আদায় করতে পারবেন।

21. Resturant business

লোকেরা বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে খাবার খেতে অধিক পছন্দ করে থাকেন। বিশেষ করে ফাস্ট ফুড খাওয়ার প্রতি সকলের আলাদা এক প্রকার আকর্ষণ রয়েছে।

ফাস্ট ফুডের রেস্টুরেন্টে প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণে মানুষ গিয়ে খাবার খেয়ে থাকেন। যেখানে অনেক মানুষের সমাগম রয়েছে এরকম জায়গায় থাকা রেস্টুরেন্টের প্রতিদিনের ইনকাম দেখলে আপনি অবশ্যই চমকে যাবেন।

ফাস্ট ফুড বানিয়ে সেগুলো বিক্রি করার মাধ্যমে তারা কি বেশি পরিমাণে ইনকাম করে থাকেন।

তারা যদি কম টাকা খরচ করে বিভিন্ন সুস্বাদু খাবার তৈরি করে থাকেন এবং সেগুলো অনেক বেশি দামে বিক্রি করেন, তবুও লোকেরা সেগুলো কিনে খেয়ে থাকেন।

তাই আপনি একটি রেস্টুরেন্টের ব্যবসা করতে পারেন এবং প্রচুর লাভ জেনারেট করতে পারেন।

বিশেষ করে আপনার রেস্টুরেন্টের খাবারের মান যদি ভালো হয়ে থাকে, তাহলে লোকেরা সেগুলো পছন্দ করবেন এবং একাধিকবার তারা আপনার রেস্টুরেন্টে গিয়ে খাবার খেতে থাকবেন।

তাই এটি কিন্তু বর্তমানে একটি লাভজনক বিজনেস আইডিয়া।

কৃষিভিত্তিক বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া গুলো

22. Poultry eggs

কৃষিভিত্তিক বাংলাদেশে এটি একটি দারুন বিজনেস আইডিয়া। এটি অনেক আগে থেকেই আমাদের দেশে চলে আসছে।

এজন্য আপনাকে প্রথমে একটি ভালো জায়গা নির্বাচন করতে হবে, সেখানে কিছু ভালো জাতের মুরগি রাখতে হবে, তাদের খাবার সরবরাহ করতে হবে এবং তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে হবে।

তবে এটি শুরু করার আগে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করলে ভালো হয়।

23. Poultry broiler

অন্যান্য দেশ গুলোর মত বাংলাদেশেও মুরগির ভালো চাহিদা রয়ছে। এটি আপনার জন্য একটি অত্যান্ত লাভজনক ব্যবসা।

এই ব্যবসাতেও আপনাকে একটি ভালো স্থান বেছে নিতে হবে উন্নত জাতের মুরগি রাখতে হবে, তাদের খাবারের সরবরাহ নিশ্চিত রাখতে হবে এবং উপযুক্ত ভাবে সেগুলো পালনের জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে।

24. Fishery

বাংলাদেশ একটি নদীমাতৃক দেশ এবং আমাদের দেশের মানুষরা মাছ ক্ষেতে খুব পছন্দ করে থাকেন। বলা হয়ে থাকে, মাছে ভাতে বাঙালি।

বাংলাদেশের ছোট বড় প্রায় সব জলাশয়ই মাছ চাষের জন্য উপযোগী।

আপনি এই ব্যবসাতে অধিক লাভবান হতে পারেন।

আপনাকে অবশ্যই মাছ চাষ করার জন্য এরকম একটি জায়গা বেছে নিতে হবে যে জায়গাটি বন্যায় প্লাবিত হয় না।

আপনি যদি কেবল মাছ চাষের জন্য একটি পুকুর নির্মাণ করতে পারেন তাহলে এটি আরও ভালো।

তারপর আপনার অবস্থান এবং চাহিদা অনুসারে মাছের ধরন বেছে নিন। মাছের ভালো যত্ন নিন এবং তাদের ভালো খাবার সরবরাহ করুন। পরিপক্ক মাছ সংগ্রহ করার পর, আপনার নিকটস্থ বাজারে বা আপনার সুবিধা এবং লাভের জায়গায় বিক্রি করুন।

25. Goat fairming

বাংলাদেশের মানুষের কাছে ছাগলের মাংস খুবই জনপ্রিয়। ছাগলেই চামড়ার জনপ্রিয়তা অধিক। তাই আপনি কম ঝামেলাতে বেশি পরিমাণে লাভের জন্য ছাগলের খামার করতে পারেন।

বর্তমানে বাংলাদেশে ছাগলের চাহিদা খুবই বেশি তাই এগুলো বাজারে বিক্রি করা কঠিন কোন কাজ নয়।

কিভাবে ছাগল পালন করতে হয় এ বিষয়ে আগের আর্টিকেলে জেনে নিতে পারেন।

26. Vegitable fairming

বাংলাদেশের মানুষ সারা বছর বিভিন্ন সবজি খেয়ে থাকেন। তাই বিভিন্ন প্রকারের সবজির চাহিদা বাজারে অনেক বেশি রয়েছে। আপনি বাণিজ্যিকভাবে সবজি চাষ করতে পারেন।

সবজি চাষের ব্যবসায়, আপনাকে প্রথম ধাপে পণ্যের বিক্রয় নিশ্চিত করতে হবে, কারণ সবজি পচনশীল পণ্য।

এর পরে, প্লট নির্বাচন করুন এবং মাটি পরীক্ষা করুন। তারপর, ফসল নির্বাচন করুন এবং সঠিক যত্ন ও ব্যবস্থাপনার সাথে সবজি চাষের কাজ শুরু করুন।

আমার শেষ কথা

তাহলে বন্ধুরা, বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা কোন গুলো এ বিষয়ে আজকের আর্টিকেলে আশা করি আপনারা জানতে পেরেছেন। এমনিতে বাংলাদেশে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া অনেক রয়েছে।

আর উপরে যে ব্যবসার আইডিয়া গুলো উল্লেখ করা হয়েছে এগুলোর সবই লাভজনক।

তবে ব্যবসা শুরুর আগে আপনাকে অবশ্যই ভেবে দেখতে হবে, কোন ব্যবসা আপনার জন্য profitable হতে পারে। 26 most profitable business ideas in Bangladesh এ বিষয়ে আজকের এই আর্টিকেলটি আশা করি আপনাদের ভালো লেগেছে।

আর্টিকেলটি ভালো লাগলে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার অবশ্যই করবেন। কোন ব্যবসাতে সবচেয়ে বেশি লাভ রয়েছে এ বিষয়ে আপনার কোন প্রশ্ন অথবা পরামর্শ থাকলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

অবশ্যই পড়ুন –

Leave a Reply

Your email address will not be published.