Skip to content

বিজ্ঞান কি বা বিজ্ঞান কাকে বলে? বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখা

বিজ্ঞান কি বা বিজ্ঞান কাকে বলে এবং বিজ্ঞানের শাখাগুলোর বিষয়ে আজকের আর্টিকেলে আমরা জানব।

বিজ্ঞান কি

সাইন্স কি ? সাইন্স বলতে কি বোঝায়

বিজ্ঞান প্রতিটি ক্ষেত্রে মানুষকে দিয়েছে বিপুল শক্তি ও সাফল্য বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রায় বিষয়ে পৃথিবী এখন মানুষের হাতের মুঠোয় চলে এসেছে প্রাচীনকালের অরণ্যচারী, গুহাবাসী মানুষ বিজ্ঞানের সাফল্যে আজ প্রবেশ করেছেন পারমাণবিক যুগে।

বর্তমানে আমাদের দৈনন্দিন জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে আমরা বিজ্ঞানের উপর নির্ভরশীল সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর থেকে রাতে ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্ত আমরা বিজ্ঞানের অবদানকে কাজে লাগাচ্ছি।

বিজ্ঞানের বদৌলতে দূরদূরান্ত হয়ে পড়েছে অনেক কাছের।

বর্তমানে শিক্ষা ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা কম্পিউটারইন্টারনেট ইত্যাদি প্রযুক্তিগত সুবিধা ভোগ করছে চিকিৎসা ক্ষেত্রে আধুনিক বিজ্ঞানের জন্ম দিয়েছে।

সঠিকভাবে রোগ নির্ণয়ে, এমনকি জন্মপূর্ব রোগ নির্ণয়েও সাফল্য অর্জন করেছে বিজ্ঞান। কৃষি ক্ষেত্রে বিজ্ঞানের আশীর্বাদে আজ ফসলের ক্ষেত্রগুলো পরিপূর্ণ হয়ে উঠেছে এভাবে দেখলে দেখা যাবে যাতায়াত কৃষি শিক্ষা চিকিৎসা সহ মানব জীবনের সবগুলো ক্ষেত্রে বিজ্ঞান রাখছে অভাবনীয় ভূমিকা

তবে বিজ্ঞান কি বা বিজ্ঞান কাকে বলে, বিজ্ঞান মানে কি এই বিষয়ে আমাদের জানা প্রয়োজন।

বিজ্ঞান কি? (What is Science)

Science শব্দটির আভিধানিক অর্থ হলো বিজ্ঞান। এটি Latin শব্দ scientia থেকে এসেছে যার অর্থ knowledge বা জ্ঞান।

বিজ্ঞান হলো পর্যবেক্ষণ এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে ভৌত এবং প্রাকৃতিক জগতের অধ্যায়ন।

বিজ্ঞান আমাদের চারপাশে রয়েছে এ সময়ে আপনি যে এই পাঠটি পড়ছেন এটিও বিজ্ঞানের অবদান। আমরা যে খাবার খাই জল পান করি এবং আমরা যে পোশাক পরিধান করি এগুলো সবই বিজ্ঞানের উপর ভিত্তি করে।

বায়ুমণ্ডলের দিকে তাকানো আমাদের জ্যোতির্বিজ্ঞানের একটি আভাস দেয়। এটি বিজ্ঞানের আরেকটি শাখা।

সহজভাবে, বিজ্ঞান কাকে বলে?

পর্যবেক্ষণ ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে আহরিত তথ্য ও যুক্তি দ্বারা প্রমাণিত সত্যের উপর প্রতিষ্ঠিত সুসংবদ্ধ জ্ঞানকে বিজ্ঞান বলে।

বিজ্ঞানের শাখা

পদার্থ বিজ্ঞান

বিজ্ঞান কাকে বলে

সাধারণভাবে আমরা বলতে পারি, বিজ্ঞানের যে শাখায় পদার্থ আর শক্তি এবং এ দুইয়ের মাঝে যে অন্তঃক্রিয়া তাকে বোঝার চেষ্টা করে সেটা হচ্ছে পদার্থবিজ্ঞান।

পদার্থবিজ্ঞানের প্রায়ই এমন জিনিস জড়িত আমরা দেখতে বা স্পর্শ করতে পারি না, কিন্তু প্রমাণ করতে পারি যেমন, মাধ্যাকর্ষণ।

আমরা মধ্যাকর্ষণ শক্তি দেখতে বা স্পর্শ করতে পারি না কিন্তু বছরের পর বছর ধরে পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে আমরা জানি যে এটি রয়েছে।

স্যার আইজ্যাক নিউটন, যিনি সর্বকালের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মহাবিজ্ঞানী। পদার্থবিদ্যা, রসায়ন শাস্ত্র, গণিতশাস্ত্র, জ্যোতির্বিদ্যা ও প্রকৃতিদর্শনসহ বহুমুখী বিষয়ে তিনি সুপন্ডিত ছিলেন।

পদার্থবিজ্ঞানের তার অবদান গুলো হলো: গতিতত্ত্বের নিবিড় গবেষণা ও গতিসূত্রের অনন্য উদ্ভাবন, জটিল গাণিতিক যুক্তি তত্ত্বের সমাধান ও ক্যালকুলাস নামক গণিতশাস্ত্র উদ্ভাবন, জ্যোতির্বিজ্ঞানে মাধ্যাকর্ষণ শক্তি আবিষ্কার, মহাকর্ষ বল আর্নিক ও বার্ষিক গতির স্বপক্ষে গ্রহণীয় সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা।

আলবার্ট আইনস্টাইন, যিনি সর্বকালের অন্যতম শ্রেষ্ঠ মহাবিজ্ঞানী, বিশ্বনন্দিত তত্ত্বীয় পদার্থবিজ্ঞানী এবং আপেক্ষিক তত্ত্বের জন্য বিশেষভাবে খ্যাত।

1905 সালে আলবার্ট আইনস্টাইন তার যুগান্তকারী আপেক্ষিক তত্ত্ব প্রকাশ করে বিশ্বময় খ্যাতি অর্জন করেন। তিনি ভরশক্তি মতবাদের প্রবর্তক এ সম্পর্কে তার প্রতিপাদিত গাণিতিক সূত্র টি হলো E = mc². এখানে m বস্তুর ভর, c আলোর বেগ এবং E শক্তির পরিমাণ।

রসায়নবিজ্ঞান

সাইন্স কি

রসায়ন হলো পদার্থের রাসায়নিক বিক্রিয়া এবং বৈশিষ্ট্যের অধ্যয়ন। আমরা পদার্থবিদ্যা সম্পর্কে যা জানি, তার উপর ভিত্তি করে রসায়নের সমস্ত নীতি প্রতিষ্ঠিত। বিজ্ঞানের বিষয়গুলি পিরামিডের মতো একে অপরের উপর তৈরি হয়।

রসায়ন শাস্ত্রে জড়িত যে কিভাবে পরমাণু, বিশ্বের ক্ষুদ্রতম কণা, যৌগ তৈরি করতে একত্রে আবদ্ধ হয়। হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্ট, ক্লিনিং প্রোডাক্ট, এমনকি আপনি যে প্যাকেটজাত খাবার খান, সবই রসায়নের উপর ভিত্তি করে।

উদাহরণস্বরূপ, ল্যাবে, বিজ্ঞানীরা রাসায়নিক বিক্রিয়া ব্যবহার করে যৌগ তৈরি করে যা নির্দিষ্ট প্রাকৃতিক খাবারের মতো গন্ধ করে। প্রাচীনতম আবিষ্কারগুলির মধ্যে একটি ছিল মিথাইল অ্যানথ্রানিলেট, একটি যৌগ যা আঙ্গুরের মতো গন্ধযুক্ত এবং আঙ্গুর কুল-এইডের মূল উপাদানগুলির মধ্যে একটি।

অন্যান্য রসায়নবিদদের বিশ্বে আরও উল্লেখযোগ্য প্রভাব ছিল। মেরি কুরিই প্রথম দুটি নতুন তেজস্ক্রিয় উপাদান আবিষ্কার করেন এবং ক্যান্সারের টিউমারের চিকিৎসার জন্য বিকিরণ ব্যবহার করেন। তার কাজ চিকিৎসায় বিপ্লব ঘটিয়েছে।

দুর্ভাগ্যবশত, তিনি শেষ পর্যন্ত বিকিরণ এক্সপোজারে মারা যান। তার মৃত্যুর আগে, তিনি রসায়নে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন, যা বিজ্ঞানীদের জন্য সবচেয়ে সম্মানিত পুরস্কারগুলির মধ্যে একটি।

জীববিজ্ঞান

বিজ্ঞানের শাখা - জীববিজ্ঞান

জীববিদ্যা হলো জীবনের অধ্যয়ন এবং রসায়নের নীতি এবং যৌগগুলি এর ভিত্তি তৈরি করে। জীববিজ্ঞান অর্গানেল নামক কোষের অভ্যন্তরে সবচেয়ে ক্ষুদ্রাকৃতির গঠন অধ্যয়ন থেকে শুরু করে নির্দিষ্ট জলবায়ু সহ ভূমির বিশাল জনসমাগম, যাকে বায়োম বলা হয়।

জীববিজ্ঞানীরা কোষ, জেনেটিক্স, অ্যানাটমি এবং শরীরের ফিজিওলজি, বিবর্তন এবং বাস্তুবিদ্যা অধ্যয়ন করেন। জীববিজ্ঞান সম্ভবত মানব জীবনের জন্য সবচেয়ে প্রাসঙ্গিক, কারণ অনেক জীববিজ্ঞানী আমাদের দেহ এবং কোষ এবং ডিএনএর মতো ভিতরের উপাদানগুলি নিয়ে গবেষণা করেন।

প্রকৃতপক্ষে, প্রথম দিকের কিছু জিনতত্ত্ববিদ ডিএনএ-র মূল বিষয়গুলিতে আগ্রহী ছিলেন। 1953 সালে, জেমস ওয়াটসন এবং ফ্রান্সিস ক্রিক কোষের ভিতরে ডিএনএর গঠন নিয়ে তাদের কাজ প্রকাশ করেন, যা সেলুলার জেনেটিক্সের ক্ষেত্রটি চালু করেছিল।

এখন, সরকার এবং অনেক স্বাধীন কোম্পানির জন্য কাজ করা বিজ্ঞানীরা কোষ এবং জেনেটিক্স অধ্যয়নের মাধ্যমে ক্যান্সার, ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগের চিকিতসা এবং এইচআইভির মতো সংক্রামক রোগের প্রতিকার খুঁজে বের করার জন্য প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন৷

Leave a Reply

Your email address will not be published.