মন ভালো করার উপায় । মন খারাপ হলে কি করবেন

মন ভালো করার উপায়:

বন্ধুরা, আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা নিজের মন ভালো রাখার কিছু কার্যকর উপায় সম্পর্কে জানবো।

বর্তমান আধুনিক যুগে প্রত্যেক মানুষেরই সবসময় কোন না কোন কাজের মধ্যে থাকেন। ফলে এখনকার সময়ে প্রায় প্রত্যেক মানুষের উপর চাপ অনেক বেড়ে গেছে।

আর এজন্য আপনারা নিজেকে ভালো এবং সুন্দর রাখার উপায় গুলো খুঁজে থাকেন।

নিজের মন ভালো করার উপায়

নিজের মন ভালো রাখার উপায়

যদি আপনি অতিরিক্ত মানসিক চাপের মধ্যে পড়ে আছেন, তাহলে আপনি একা একা খুশি থাকার উপায় গুলো জানতে পারেন এবং আপনার মনকে সবসময় হাসিখুশি এবং প্রফুল্ল রাখতে পারেন।

জীবনের পথ চলার সময় নানা কারনে আপনার মন খারাপ হয়ে যেতে পারে বা আপনি ভেঙে পড়তে পারেন। তা হতে পারে আপনাকে কেউ কিছু বলেছে যা আপনি মেনে নিতে পারছেন না।

এছাড়াও আরো অনেক কারণ রয়েছে যেগুলো আমাদের মনকে সবসময় হাসিখুশি থাকতে দেয় না।

কিন্তু মনে রাখবেন জীবনে এগিয়ে যেতে হলে বা সফলতা অর্জন করতে হলে এসব কিছু বাধা-বিপত্তিকে কাটিয়ে আমাদের সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া উচিত।

কেননা জীবনটা একটা যুদ্ধক্ষেত্র। এখানে যুদ্ধ করে সৈনিকের মতো টিকে থাকতে হবে।

কিন্তু আপনার মন কোন না কোন কারনে খারাপ হতেই পারে এটা স্বাভাবিক ব্যাপার।

এটা আপনার আমার এবং সকলের ক্ষেত্রে এমনটা হতে পারে।

তাই নিজের মনকে ভালো রাখার কিছু কার্যকরী উপায় জেনে নিলে আপনার নিরবতার খারাপ সময়ে আপনার মনকে হাসিখুশি রাখতে পারেন।

এমনিতে মন ভালো করার উপায় গুলো খুবই সাধারণ। কেবল অল্প কিছু সময় এমন কিছু কাজ রয়েছে যেগুলোর মাধ্যমে আপনার মন ভালো রাখতে পারেন।

তাই আপনি যদি জানতে চাচ্ছেন যে মন খারাপ হলে কি করবেন তাহলেই সে আমি ৮ টি মন ভালো করার উপায় উল্লেখ করছি যেগুলোর মাধ্যমে নিজেকে ভালো ফ্রেশ (fresh) এবং প্রফুল্ল রাখতে পারবেন।

8 best ways to keep your mind fresh.

নিজের মন ভালো করার উপায় গুলো কি কি ?

মন খারাপ হলে কি করবেন? এ বিষয়ে নিচে আমি আপনাদের কার্যকর উপায় গুলো উল্লেখ করছি।

এই মন ভালো করার টিপস গুলো ফলো করে আপনার মন খারাপের সেই সময়কে নিজেকে হাসিখুশি রাখতে পারেন।

তো চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে নিজের মন ভালো করবেন।

মন ভাল করার গান

মন ভালো রাখার উপায়

যদি কোন কারণে আপনার মন খারাপ হয়ে রয়েছে তা হলে তাৎক্ষণিক আপনার মনকে ভালো করার জন্য গান একটি সেরা উপায় হিসেবে কাজ করবে।

এ সময় আপনার যে গানটি খুব পছন্দ বা যে গান শুনলে আপনি অনেক ভাল অনুভব করেন সেই গান শুনুন, দেখুন কিছুক্ষণের মধ্যে আপনার মন থেকে দুশ্চিন্তা গুলো চলে গিয়ে খুব ভালো অনুভব লাগবে।

আমাদের চিত্ত বিনোদনের ক্ষেত্রে গান কিন্তু অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

তাছাড়া আমার নিজের মন যদি কোন কারনে খারাপ হয়ে যায় বা অনুভব করি তখন আমিও আমার পছন্দের গান শুনে থাকি।

এতে আমার মন দিরে দিরে সতেজ হয়ে উঠে আপনি একা একা গান শোনার জন্য হেডফোন কানে লাগিয়ে নিতে পারেন।

বই পড়ে মন ভালো করুন

বই পড়ে মন ভালো করুন

আপনি হয়তো জানেন না যে বই পড়ে নিজের মনকে ভালো রাখা যায়।

যদিও বর্তমানে আমাদের বইয়ের প্রতি তেমন আকর্ষণ নেই এবং আমরা সব সময় মোবাইল ফোন কম্পিউটার এবং ইন্টারনেট নিয়ে ব্যস্ত থাকি।

কিন্তু বই পড়া আপনার মনে অনেক শান্তি এনে দিতে পারে।

যদি আপনার মন খারাপের সময় আপনার পছন্দের কোনো বই বা ভাল গল্পের বই পড়তে শুরু করেন, তাহলে আপনার মন ধীরে ধীরে অবশ্যই প্রফুল্ল হতে শুরু করবে।

কেননা আমরা যখন কোন একটি বই পড়তে শুরু করি এতে আমরা কেবল বইয়ের বিষয়ের উপর মনোযোগ দিয়ে থাকি, যে বিষয়টি আমরা পড়ছি।

এতে আমাদের মন থেকে সব ধরনের খারাপ দুশ্চিন্তা সরে যায় আমিও মাঝে মাঝে বই পড়ে আমার খারাপ সময় কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হয়েছি।

নিজেকে কাজে ব্যস্ত রাখুন

মন ভালো করার টিপস

নিজেকে কাজে ব্যস্ত রাখলে আপনার মন খারাপ হওয়ার সুযোগ কখনোই থাকেনা। কেননা আমরা যখন কোন কাজ করে থাকি তখন আমরা সেই কাজেই নিজেকে ব্যস্ত রাখি এবং মন খারাপ হওয়ার মতো কোনো চিন্তাভাবনা আমাদের মাথায় আসতে পারে না।

আর আপনার যদি কোন কাজ না থাকে তাহলে বসে বসে সময় কাটানোর ফলে মাথায় অনেক চিন্তা ভাবনা ঘুরপাক খায়, ফলে আমাদের মন খারাপ হয়ে থাকে।

তাই কোন ছোট ভালো কাজের সাথে যুক্ত থাকুন, দেখুন আপনার মনে এমনিতে সন্তুষ্টি চলে আসবে।

বন্ধু-বান্ধবের সাথে আড্ডা দিন

মন খারাপ হলে কি করবেন

আমাদের সকলের এই জীবনে কিন্তু অবশ্যই বন্ধুবান্ধব রয়েছে কারণ বন্ধুবান্ধব ছাড়া আমরা কেউ একা চলতে পারিনা।

আর আপনি যদি একজন স্টুডেন্ট তাহলে তো আপনার কিছু ভালো বন্ধু অবশ্যই রয়েছে।

আপনার মন খারাপের সময় বা যখন আপনার মনে দুশ্চিন্তা চলে আসে তখন বন্ধু-বান্ধবদের সাথে আড্ডা দেওয়া বা কথা বলা আমাদের মন ভালো করার ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

কিন্তু সেই সময়ে আপনার বন্ধুদের সাথে সরাসরি দেখা নাও পেতে পারেন।

কিন্তু আমাদের হাতে মোবাইল ফোন আছে যার দ্বারা আমরা ইন্টারনেটের সোশ্যাল মিডিয়ায় ওয়েবসাইট যেমন ফেসবুক, টুইটার ইত্যাদি ব্যবহার করে থাকি।

আপনার মন খারাপ হলে বন্ধুদের সাথে চ্যাটিং করে সময় কাটাতে পারেন। এজন্য বন্ধুদের সাথে একটি মেসেজিং গ্রুপ (chatting group) খোলা অনেক কাজে আসে।

এতে গ্রুপে সবাই একসাথে কথোপকথন করা যায়। মন ভালো করার উপায় গুলো মধ্যে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেওয়ার একটি সেরা উপায় বলে আমি মনে করি।

কেননা আমার যখন মন খারাপ হয়ে থাকে তখন আমি আমার বন্ধুদের সাথে চ্যাটিং করতে পছন্দ করি এবং আমার মন সন্তুষ্টি লাভ করে।

মন‌ খারাপের বিষয়টি নিয়ে ভাবা বাদ দিন

আপনার যে বিষয়টি নিয়ে মন খারাপ হয়ে রয়েছে সেই টপিকটি যদি মাথা থেকে সরিয়ে নিতে পারেন তাহলে আপনার মন ভাল হতে থাকবে।

অর্থাৎ মন খারাপের বিষয়টি নিয়ে না ভেবে কোন একটি সৃজনশীল কাজে মন দিন। এতে আপনি অনেকটা প্রশান্তি অনুভব করবেন।

ফানি নাটক দেখুন

আমরা যখন একটি নাটক দেখি তখন আমাদের মন অনেক ফ্রেশ থাকে। আর যদি সেটি ফানি নাটক হয় তাহলে আমরা অনেক প্রফুল্লতা অনুভব করি এবং সেখান থেকে অনেক মজা পাই।

তাই আপনার মন খারাপ হলে নাটক দেখতে পারেন।

নিজেকে মোটিভেট‌ করুন

মোটিভেশন মানুষের জীবন পরিবর্তন করতে সহায়তা করে থাকে। আপনি আপনার লাইফে পরিবর্তন আনতে পারেন মোটিভেশন করার মাধ্যমে মোটিভেশন এর মাধ্যমে।

মোটিভেশন আপনার মন থেকে শুনতে হবে ইত্যাদি সরিয়ে ফেলা সম্ভব। তাই মন খারাপ থাকলে কিছু সময় মোটিভেট করুন মন ভালো হয়ে যাবে।

এছাড়াও আরো অনেক কিছু উপায় রয়েছে যেগুলো আপনার মনকে ভালো করার কাজে সাহায্য করবে।

মন ভালো করার আরো কিছু উপায়:

মন ভালো রাখুন

  • নিজের প্রতি স্বনির্ভর হোন।
  • নিজের ভালোলাগা কাজ করতে থাকুন।
  • মন ভালো রাখতে শপিং করুন।
  • পছন্দের খাবার যেমন, চকলেট খেতে পারেন।
  • প্রিয়জনের সাথে কথা বলতে পারেন।
  • নিজেকে সাজান‌ এবং নিজের চেহারা আয়নায় দেখুন।
  • কোথাও ঘুরতে বের‌ হন।
  • মোবাইলে ফটোগ্রাফি বা ফটো এডিটিং এর কাজ করতে পারেন।
  • মুভি, সিনেমা ইত্যাদি দেখতে পারেন।
  • খেলার মাঠে গিয়ে খেলতে অথবা খেলা‌ দেখতে পারেন।

এসব উপায়ে আপনার মনকে এবং নিজেকে ভালো রাখতে পারেন।

আমার শেষ কথা

বন্ধুরা আশা করি নিজের মন ভালো করার উপায় বা মন‌ খারাপ হলে কি করবেন? এ বিষয়ে আর্টিকেলটি আপনার ভালো লেগেছে।

আপনার যদি প্রায় সময় মন‌ খারাপ হয়ে থাকে তাহলে সেই মনমরা হয়ে না থেকে এই কাজগুলো করলে আপনি আনন্দ পেতে পারেন এবং নিজের প্রতি আত্নবিশ্বাস তৈরি হয়।

আর্টিকেল টি যদি ভালো লাগে তাহলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *