শিক্ষা বিস্তারে গণমাধ্যমের ভূমিকা রচনা

প্রবন্ধ রচনা: শিক্ষা বিস্তারে গণমাধ্যমের ভূমিকা । আপনি যদি শিক্ষা বিস্তারে গণমাধ্যম এই রচনাটি খুঁজছেন তাহলে নিচে থেকে রচনাটি দেখুন।

শিক্ষা বিস্তারে গণমাধ্যমের ভূমিকা রচনা

শিক্ষা বিস্তারে গণমাধ্যমের ভূমিকা রচনা

ভূমিকা: গণমাধ্যম কথাটি ব্যাপক , বিস্কৃত এবং গুরুত্ববহ । বর্তমান বিশ্বে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ধারাবাহিক উর্ষের কারণে এর গুরুত্ব ক্রমশই বৃদ্ধি পেয়েছে । গণমাধ্যম সময়ের দর্পণ , সমাজের দর্পণ । এর মাধ্যমে মানুষ সমাজ , রাষ্ট্র এমনকি বৈশ্বিক পরিমন্ডলের সঙ্গেও একাত্ম হতে পারছে । বস্তুত , গণমাধ্যম শিক্ষার বিস্তৃত পরিসরকেই আমাদের হাতের মুঠোয় এনে দিয়েছে ।

গণমাধ্যমের স্বরূপ: একসময় সংবাদপত্রই ছিল গণযােগাযােগের মাধ্যম । বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির কল্যাণে এখন কেবল প্রিন্ট মিডিয়া বা কাগজে ছাপা সংবাদপত্রই গণযােগাযােগের মাধ্যম নয় । এছাড়াও রেডিও , টেলিভিশন , ইন্টারনেট এমনকি কোটি কোটি মানুষের দৈনন্দিন ব্যবহৃত হাতের সেলফোনটিও এখন গণযােগাযােগের মাধ্যম বা গণমাধ্যম । অবশ্য তথপ্রযুক্তি আবিষ্কারের আগে সিনেমা এবং তথ্যচিত্রও অংশত গণমাধ্যম হয়ে উঠেছিল । তবে সিনেমা ছিল মূলত বিনােদনের মাধ্যম । এজন্য পাশ্চাত্যের মতাে আমাদের দেশেও সাংবাদিকতা শিক্ষার প্রচলিত ধারার পরিবর্তন হয় । বর্তমানে গণমাধ্যম বাংলাদেশে বহুল প্রচলিত একটি শব্দ । এছাড়া ইংরেজি ‘ মিডিয়া ‘ কথাটিও আমাদের পূর্ব পরিচিত ।

শিক্ষাক্ষেত্রে গণমাধ্যমের গুরুত্ব: শিক্ষাক্ষেত্রে গণমাধ্যম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । শিক্ষাকে একটি জাতির মেরুদণ্ড বলা হয় । তাই শিক্ষাব্যবস্থা যদি উন্নত না হয় তাহলে জাতি অনেক পিছিয়ে পড়বে । দেশের পত্রপত্রিকা , রেডিও – টেলিভিশনসহ সকল গণমাধ্যম শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান এবং সংবাদকে গুরুত্বের সাথে প্রকাশ ও প্রচার করে থাকে । প্রতিটি গণমাধ্যমেই এ বিষয়ে আলাদা বিভাগ থাকে । এক্ষেত্রে সংবাদপত্রগুলাে শিক্ষা বিষয়ক বিশেষ পাতা প্রকাশ করে এবং টেলিভিশনে শিক্ষামূলক নানা অনুষ্ঠান সম্প্রচারিত হয় । এসবের মাধ্যমে শিক্ষক , শিক্ষার্থী , অভিভাবকসহ শিক্ষার সাথে সম্পৃক্ত বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান তাদের কাঙ্ক্ষিত তথ্য পেয়ে থাকে ।

রচনা শিক্ষা বিস্তারে গণমাধ্যমের ভূমিকা

প্রাথমিক শিক্ষাবিস্তারে গণমাধ্যম: বাংলাদেশের গ্রামীণ জনপদে গুণগত মানসম্পন্ন প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতকরণে গণমাধ্যম তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে । বস্তুত , শিক্ষা সমাজকে সভ্য করে , পরিবারকে শিষ্টাচারে উদ্বুদ্ধ করে আর মানুষকে করে প্রজ্ঞাবান । যদি দেশের মানুষ অশিক্ষিত হয় , তবে পারিবারিক শিষ্টাচার ও ব্যক্তিগত প্রজ্ঞার কোনাে মূল্য থাকে না । এজন্য প্রয়ােজন গণশিক্ষা । আর প্রাথমিক শিক্ষার আধুনিকায়নে গণমাধ্যম যুগান্তকারী ভূমিকা রাখতে পারে ।

নিরক্ষরতা দূরীকরণে গণমাধ্যম: বাংলাদেশের মতো জনবহুল দেশে নিরক্ষরতা দূর করা দুরূহ একটি ব্যপার । শুধু সরকার বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রচেষ্টায় তা সম্ভব নয় । এ অবস্থায় বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষকে শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে গণমাধ্যম উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে পারে । এছাড়াও সংবাদপত্র তাদের শিক্ষা ও জ্ঞানের পরিধিকে বৃদ্ধি করতে পারে । রেডিওর মাধ্যমে শ্রোতারা অনেককিছু শিখতে পারে , জানতে পারে নতুন নতুন তথ্য ও সংবাদ । তবে টেলিভিশনে দর্শকরা শোনার সঙ্গে সঙ্গে দেখারও সুযােগ পায় । সংবাদপত্র পড়ে , রেডিও শুনে , টেলিভিশন দেখে ও শুনে মানুষ নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে ও বুঝতে পারে ।

শিক্ষাবিস্তারে সংবাদপত্র: সংবাদপত্রের প্রধান কাজ সমাজ জীবনের নানা ত্রুটি – বিচ্যুতি পর্যালােচনা করে পথ নির্দেশ করা । এজন্য সংবাদপত্রকে ফোর্থ স্টেট বা চতুর্থ রাষ্ট্র বলা হয় । আসলে সংবাদপত্র হচ্ছে গণতন্ত্রের চোখ । এ চোখ । দিয়েই সরকার সমাজের অনেক ভেতর পর্যন্ত দেখতে পায় । সংবাদপত্রের সাহায্যে পৃথিবীর বিচিত্র ঘটনার সঙ্গে আমরা সহজে পরিচিত হতে পারি । সংবাদপত্রের মাধ্যমে আমরা সামাজিক , রাজনৈতিক , অর্থনৈতিক , ধর্মীয় , সাহিত্য – সংস্কৃতিসহ নানা বিষয় সম্পর্কে জানতে পারি । একজন মানুষ সংবাদপত্রের মাধ্যমে এসব তথ্য জেনে নিজের জ্ঞান ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করতে পারে ।

শিক্ষাবিস্তারে রেডিও, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্র: রেডিও – টিভিতে প্রচারিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিদ্যার্থীরা উপকৃত হয় । শিক্ষার্থীদের পঠনপাঠনে সরাসরি কাজে লাগে এমন সব অনুষ্ঠান প্রায়ই রেডিও – টিভিতে প্রচারিত হয় । তাছাড়া নিরক্ষরদের মধ্যে শিক্ষাবিস্তারেও এসকল মাধ্যম বিশেষ সহায়ক হতে পারে । টেলিভিশনে প্রচারিত প্রকৃতি ও জীবজগতের ওপর নির্মিত তথ্যচিত্র এবং অনুষ্ঠানমালা আমাদের জ্ঞান ভান্ডারকে সমৃদ্ধ করে । খেলাধুলা , উৎসব অনুষ্ঠানের প্রচারকে ঘিরে দেশে টেলিভিশনের জনপ্রিয়তা অনেক । বিজ্ঞান শিক্ষা , সাহিত্য চর্চা , ধর্মীয় ও দার্শনিক মতবাদ প্রচার প্রভৃতি দিক দিয়ে টেলিভিশন জাতীয় জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে । ইলেকট্রনিক মিডিয়া হিসেবে টেলিভিশনের বিভিন্ন ধরনের শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান শিক্ষার মান উন্নয়নে শিশু থেকে শুরু করে সব শ্রেণির জনগণের জন্য বিশেষ ভূমিকা রাখে ।

শিক্ষাবিস্তারে ইন্টারনেটের ভূমিকা: ইন্টারনেট আধুনিক গণমাধ্যমের বিস্ময়কর সংযােজন । শিক্ষা , চিকিৎসা , অর্থনীতি , রাজনীতি , সংস্কৃতি প্রতিটি ক্ষেত্রেই ভূমিকা রাখছে ইন্টারনেট । শিক্ষার ক্ষেত্রে ইন্টারনেট এনেছে বৈপ্লবিক পরিবর্তন । পাঠ্যবইয়ের বাইরেও জ্ঞান – বিজ্ঞান সংক্রান্ত বিভিন্ন বই পুস্তক এবং তথ্য – উপাত্ত শিক্ষার্থীদের প্রয়ােজন হয় । এ সকল তথ্য – উপাত্ত ইন্টারনেট থেকে ডাউনলােডের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা খুব সহজেই ব্যবহার করতে পারে । বর্তমানে দেশের বিভিন্ন কলেজ – বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির আবেদনসহ যাবতীয় কাজ ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা হয় । তাছাড়া বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে প্রকাশিত হয়ে থাকে । শিক্ষাক্ষেত্রে ইন্টারনেটের আরেকটি বিস্তৃত অবদান হলাে- ই – লার্নিং এর মাধ্যমে শ্রেণিকক্ষে অবস্থান না করেও শ্রেণিকক্ষের কার্যাবলি সরাসরি দেখাসহ তাতে অংশগ্রহণও করা যায় ।

শিক্ষা বিস্তারে গণমাধ্যম – (Sikkha Bistare Ganamaddhomer Vumika Rochona)

শিক্ষাব্যবস্থার মানােন্নয়নে গণমাধ্যমের ভূমিকা: গণমাধ্যম শিক্ষার কাঙ্ক্ষিত মানােন্নয়নে তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে । একটি দেশ তার গণমাধ্যমের ক্ষেত্রে যত বেশি উন্নয়ন ঘটাতে পারবে রাষ্ট্রের সার্বিক ব্যবস্থা বিশেষ করে শিক্ষার মানােন্নয়নও তত বেশি ত্বরান্বিত হবে । কোনাে দেশের শিক্ষার গুণগত মানােন্নয়ন এবং শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানাের ক্ষেত্রে গণমাধ্যম ব্যাপক ভূমিকা রাখে । আজকের এই প্রতিযােগিতামূলক বিশ্বে গুণগত মানসম্পন্ন শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করতে সবচেয়ে শক্তিশালী বাহন হলাে গণমাধ্যম । গণমাধ্যমের উল্লেখযােগ্য দু’টি ক্ষেত্র হচ্ছে সংবাদপত্র ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া । দুটি মিডিয়াই প্রাথমিক শিক্ষা থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত শিক্ষার সর্বস্তরের মানােন্নয়ন বা কাঙ্ক্ষিত গুণগত মানসম্পন্ন শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করতে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারে ।

উপসংহার: শিক্ষার মানােন্নয়নে বিশ্বজুড়ে গণমাধ্যমসমূহ কার্যকরি ভূমিকা রেখে যাচ্ছে । বিশেষ করে উন্নয়নশীল দেশগুলােতে এর অবদান অনস্বীকার্য । সমৃদ্ধ ও আধুনিক বাংলাদেশ বিনির্মাণে আধুনিক বিজ্ঞানসম্মত শিক্ষার কোনাে বিকল্প নেই । বাংলাদেশকে দুত এগিয়ে নিতে হলে সমগ্র শিক্ষাব্যবস্থাকে তাই ঢেলে সাজাতে হবে । পুঁথিগত মুখস্থ বিদ্যার বেড়াজাল থেকে বেরিয়ে হাতে – কলমে দক্ষতা অর্জনের ওপর অধিক গুরুত্ব দিতে হবে । বিজ্ঞান শিক্ষার অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষাবিস্তারের ক্ষেত্রে গণমাধ্যমগুলাের ভূমিকা ক্রমেই বিশেষ অর্থবহ হয়ে উঠেছে । ভবিষ্যতে শিক্ষাকে সর্বজনীন ও সহজলভ্য করার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমগুলাে আরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে ।

অবশ্যই পড়ুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *