Skip to content

VPN কি ? ভিপিএন এর কাজ এবং সুবিধা (About VPN in Bangla)

VPN কি (What is VPN in Bangla): আপনি যদি গত কয়েক বছরের কথা চিন্তা করেন। তাহলে সে সময় ভিপিএন ব্যবহার করা হতো শুধুমাত্র বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য।

আর সেই সময়ে এমন সব ভিপিএন ছিলো যার সাহায্যে আপনি অ্যান্ড্রয়েড ফোনে একদম ফ্রি ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন। আর আমরা অনেকেই এটা ভেবে থাকি যে, ফ্রি ইন্টারনেট চালানোর জন্যই সম্ভবত ভিপিএনগুলো ব্যবহার করা হয়েছিল।

কিন্তু VPN সম্পর্কে এই ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। কারণ VPN এর সম্পূর্ণ অর্থ, (Virtual Private Network) ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক। আর এই ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক দিয়ে আপনি অনেক কিছু করতে পারবেন।

এর একটি কারণ হলো আপনি ভিপিএন ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনার গোপনীয়তা রক্ষা করতে পারেন। আর এগুলো ছাড়াও আরো অনেক কারণ আছে।

যার জন্য আজকাল ব্যাপক হারে VPN এর ব্যবহার বাড়ছে। আর এটাই আজকের আলোচনার মূল বিষয়।

আপনি যদি না জানেন ভিপিএন কি এবং ভিপিএন কেন ব্যবহার করা হয়, তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য খুবই সহায়ক হবে।

কারণ আজ আমি ভিপিএন সম্পর্কে সবকিছু পর্যায়ক্রমে আলোচনা করার চেষ্টা করবো।

VPN কি বা VPN মানে কি?

VPN কি

প্রথমে আপনাকে VPN কি তা জানতে হবে। সুতরাং আপনি উপরে শিখেছেন যে VPN হলো ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক।

অর্থাৎ আমরা যখন যে কোনো ইলেকট্রনিক পণ্য ব্যবহার করি, যেমন মোবাইল, ল্যাপটপ বা কম্পিউটার।

তারপর আমাদের একটি নির্দিষ্ট আইপি এড্রেস আছে। আর এই আইপি এতটাই শক্তিশালী যে এর মাধ্যমে আপনি যেখানেই থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন না কেন, এটি খুব সহজেই চিহ্নিত করা যায়।

কিন্তু ভিপিএন উল্লেখযোগ্যভাবে এই সনাক্তকরণ ব্যাহত করে। কারণ এটি আপনার ব্যক্তিগত আইপি এড্রেসকে এনক্রিপ্ট করবে।

ফলে, আপনার যে আসল আইপি থাকবে, সেটাকে লুকানোর মাধ্যমে আপনি আপনার গোপনীয়তা রক্ষা করতে পারবেন।

VPN এর পূর্ণরূপ কি?

VPN কি তা জানার পর আর একটা জিনিস জানতে হবে। অর্থাৎ VPN এর পূর্ণরূপ কি? কারণ, এই VPN শব্দটি একটি সংক্ষিপ্ত রূপ এবং এই সংক্ষিপ্ত শব্দের একটি পূর্ণ রূপ আছে।

তাই এই VPN শব্দের পূর্ণরূপ হলো Virtual Private Network

যার মানে, আপনি যে কোনো নেটওয়ার্কের আইপির (IP) সাথে সংযুক্ত থাকেন না কেন, আপনার ডিভাইসে ভিপিএন কানেক্ট (connect) করার পর সেই নেটওয়ার্ক থেকে আরেকটি ভার্চুয়াল নেটওয়ার্ক তৈরি হবে এবং এই ভার্চুয়াল নেটওয়ার্কটি অনেক শক্তিশালী। এটি আপনার সমস্ত গোপনীয়তা লুকিয়ে রাখবে।

VPN এর কাজ কি?

VPN মানে কি

পৃথিবীর প্রতিটি জিনিসই কোন না কোন উদ্দেশ্য নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে। একইভাবে, ভিপিএনগুলো সেভাবে কোন উদ্দেশ্য নিয়ে তৈরি করা হয়েছে।

এই VPN এর অনেক কাজ আছে। আর সেই কাজগুলো সম্পন্ন করতে বর্তমানে VPN এর ব্যবহার বাড়ছে।

এবং এখন আমি VPN এর কার্যাবলী নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক VPN এর কাজ গুলো সম্পর্কে।

১. আপনার লোকেশন হাইড করতে ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন

আপনি হয়তো জানেন যে আমরা যখন আমাদের মোবাইল বা কম্পিউটার থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করি তখন আমরা একটি নির্দিষ্ট আইপিতে সংযোগ করি।

আর সে কারণেই এই আইপি অ্যাড্রেসের মাধ্যমে যেকোনো ব্যক্তির অবস্থান শনাক্ত করা সম্ভব। যেকোনো জায়গা থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করলে আপনার আইপি অ্যাড্রেসের মাধ্যমে আপনার সঠিক অবস্থান খুব সহজেই ট্র্যাক করা যাবে।

কিন্তু VPN এর মাধ্যমে আপনার অবস্থান ট্র্যাক করা খুব কঠিন হয়ে পড়ে। কারণ, আপনি যখন ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকেন তখন আপনি যেকোন নেটওয়ার্কের অধীনে থাকেন না কেন ভিপিএন আপনার সেই অবস্থানকে লুকিয়ে রাখবে।

যাইহোক, ভিপিএন এর মাধ্যমে আপনি আপনার আসল অবস্থান লুকিয়ে রাখতে পারেন এবং VPN এর মাধ্যমে অন্য অবস্থান দেখাতে পারেন।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি বাংলাদেশের কোথাও থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন। এখন যদি আপনি একটি VPN এর সাথে সংযোগ করেন এবং অন্য দেশে আপনার অবস্থান নির্বাচন করে থাকেন।

তখন যদি কেউ আপনাকে ট্র্যাক করার চেষ্টা করে, তাহলে ভিপিএন এ আপনি যে দেশটি নির্বাচন করবেন, তিনি কেবল সেই দেশের আইপি বা ঠিকানা দেখতে পারেন।

২. আপনার গোপনীয়তা বা প্রাইভেসি লুকাতে পারেন

ইন্টারনেট এমন একটি জায়গা যেখানে আপনার গোপনীয়তা খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

কারণ আপনি যদি আপনার গোপনীয়তা রক্ষা করতে না পারেন তাহলে আপনি হ্যাকিং সংক্রান্ত বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হবেন। আর একসময় আপনি কোনো না কোনোভাবে হ্যাকিংয়ের শিকার হতে পারেন।

তাহলে আপনার ক্ষতি কি হবে? সেটি মনে হয় আপনি আমার চেয়ে ভালো বলতে পারেন।

কিন্তু আপনি যদি VPN ব্যবহার করেন। তবে আপনি এই হ্যাকিং থেকে অনেকটাই রক্ষা পাবেন। কারণ, এতে করে আপনার প্রাইভেসি হাইড থাকবে।

যার কারণে অনলাইন প্ল্যাটফর্মে আপনার কোনো ধরনের ক্ষতি হবে না। সেজন্য অনেক মানুষ আছে, যারা ইন্টারনেটে তাদের গোপনীয়তা রক্ষার জন্য এই ধরণের ভিপিএন ব্যবহার করে।

৩. Blocked ওয়েবসাইট কিংবা এন্ড্রয়েড অ্যাপে প্রবেশ করতে পারেন

অনেক সময় শুনতে পাওয়া যায় ওমুক ওয়েবসাইট বাংলাদেশ থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়া অনেক সময় বিভিন্ন অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ ব্যান করা হয়।

যার কারণে আমরা চাইলেও এসব ওয়েবসাইট বা অ্যাপ ব্যবহার করতে পারি না। কিন্তু আপনি যদি ভিপিএন ব্যবহার করেন, তাহলে আপনি সহজেই এই ওয়েবসাইট বা অ্যাপগুলোতে অ্যাক্সেস করতে পারবেন।

কারণ অনলাইনে যখন কিছু নিষিদ্ধ করা হয়, তাহলে এগুলো আইপি অ্যাড্রেস থেকে নিষিদ্ধ। কিন্তু ভিপিএন দিয়ে আপনি সহজেই আপনার ব্যক্তিগত আইপি পরিবর্তন করতে পারবেন, আর সেই নিষিদ্ধ সাইট বা অ্যাপগুলো ব্যবহার করতে পারবেন কোনো ঝামেলা ছাড়াই।

৪. VPN এর মাধ্যমে আপনার ইন্টারনেট স্পিড বাড়াতে পারেন

আজকে এরকম কয়েকটি ভিপিএন তৈরি করা হয়েছে। যার মাধ্যমে আপনি আপনার ইন্টারনেট স্পিড বহুগুণ বাড়িয়ে নিতে পারবেন।

আর সে কারণেই এখন অনেকেই তাদের ইন্টারনেটের গতি বাড়াতে ভিপিএন ব্যবহার করে। কিন্তু আপনিও চাইলে এই কাজের জন্য ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন।

এজন্য আপনাকে অবশ্যই প্রিমিয়াম ভিপিএন ব্যবহার করতে হবে। কারণ, ফ্রি ভিপিএন এর মধ্যে এই ধরনের বৈশিষ্ট্য খুব কমই থাকে।

ভিপিএন ব্যবহার কি খুব প্রয়োজনীয়?

VPN এর কাজ কি

উপরের আলোচনা থেকে VPN কি এবং VPN এর পূর্ণরূপ কি। তাদের সম্পর্কে জানার পর আপনার মনে আরও একটি প্রশ্ন জাগতে পারে।

অর্থাৎ এই ভিপিএন ব্যবহার করা কি আবশ্যক? কারণ সবাই তো আর ভিপিএন ব্যবহার করে না। তাহলে কেন আপনি একটি VPN ব্যবহার করবেন?

তো চলুন বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

দেখুন, আমি বলছি না আপনাকে বাধ্যতামূলক VPN ব্যবহার করতে হবে।

কিন্তু আপনি যদি আপনার ব্যক্তিগত ডেটা নিরাপদ রাখতে চান, তাহলে আপনার জন্য VPN ব্যবহার করা উচিত। কারণ, আমাদের সবার নিজস্ব ব্যক্তিগত তথ্য আছে যেগুলোর গোপনীয়তা রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কিন্তু শুধুমাত্র যদি আপনি কোনো ব্যক্তিগত নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত থাকেন। তাহলে আপনাকে VPN ব্যবহার করতে হবে না।

কিন্তু আপনি যদি একটি ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক ব্যবহার করেন। উদাহরণস্বরূপ, একটি পাবলিক হটস্পট, রেলওয়ে স্টেশন, হোটেলের মতো একটি জায়গার নেটওয়ার্ক ব্যবহার করেন, তবে এসব জায়গায় আপনার তথ্য হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আর তাই এই জায়গা গুলোতে অবশ্যই VPN ব্যবহার করা উচিত।

কারণ আমাদের সকলেরই নিজেদের গোপনীয়তা রক্ষা করা উচিত। এইভাবে অনলাইন প্ল্যাটফর্মে কেউ আপনার ক্ষতি করতে পারবে না।

ভিপিএন ব্যবহারের নিয়ম

ভিপিএন ব্যবহারের নিয়ম

সত্যি বলতে যদি আপনি একটি VPN ব্যবহার করতে চান। তবে আপনাকে কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। কারণ VPN আপনার গোপনীয়তা রক্ষা করবে।

একইভাবে, আপনি যদি ভিপিএন ব্যবহার করার নিয়ম না জানেন তবে আপনি বিপরীতে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন।

তাই এরকম বেশ কিছু জিনিস আছে, যেগুলো VPN ব্যবহার করার সময় আপনার মাথায় রাখা উচিত।

উদাহরণ স্বরূপ,

  • আপনি যখন একটি VPN ব্যবহার করেন। তারপর প্রথমে আপনাকে সেই VPN এর রিভিউ চেক করতে হবে।
  • কারণ, ভুয়া ভিপিএন ব্যবহার করলে আপনার গোপনীয়তা রক্ষা করা হবে না। উল্টো আপনার ব্যক্তিগত ডেটা চলে যাবে হ্যাকারের কাছে।
  • তাই এই জিনিসগুলো দেখার পর আপনাকে কিছু VPN বের করতে হবে, যা দীর্ঘদিন ধরে মানুষের মধ্যে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।
  • তারপর আপনাকে সেই ভিপিএনগুলো ডাউনলোড করতে হবে এবং এটি আপনার ডিভাইসে ইনস্টল করুন।
  • অবশেষে যখন আপনি এই ইনস্টল করা ভিপিএনগুলোতে প্রবেশ করবেন।
  • তারপর আপনাকে আইপি নির্বাচন করতে হবে এবং আপনার ডিভাইসটিকে সেই আইপিতে সংযুক্ত করতে হবে।

এর চেয়ে আপনি খুব বেশি ভিপিএন ব্যবহারের নিয়ম দেখতে পাবেন না। কারণ আজকাল অনলাইন প্ল্যাটফর্মে অনেক ভিপিএন রয়েছে, যার সবগুলোই প্রায় একইভাবে ব্যবহার করতে হয় এবং উপরে উল্লিখিত নিয়মে ব্যবহার করা হয়। এই নিয়মগুলি VPN ব্যবহারের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

কিভাবে VPN ব্যবহার করবেন?

বিগত দিনগুলিতে, শুধুমাত্র কম্পিউটার ডিভাইসগুলির জন্য ভিপিএন উপলব্ধ ছিল।

কিন্তু আজকাল আপনি চাইলে কম্পিউটারের পাশাপাশি মোবাইল ডিভাইসেও কোনো সমস্যা ছাড়াই ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন।

আর যেহেতু আপনি উপরে VPN ব্যবহার করার নিয়ম শিখেছেন তাহলে আপনি কিভাবে একটি VPN ব্যবহার করবেন? এটা নিয়ে আর আলোচনা করব না।

পরিবর্তে, এই সময় আমি আপনাকে বেশ কয়েকটি VPN এর সাথে পরিচয় করিয়ে দেব। যা আপনি আপনার মোবাইল এবং কম্পিউটারে ব্যবহার করতে পারবেন।

কম্পিউটারের জন্য সেরা ফ্রি ভিপিএন সফটওয়্যার

তাই সবার আগে আমি আপনাদের সাথে পরিচয় করিয়ে দিব সেরা কিছু ফ্রি ভিপিএন। যা আপনি আপনার কম্পিউটার ডিভাইসে ব্যবহার করতে পারবেন একেবারে বিনামূল্যে।

এবং আপনি যদি এই ফ্রি ভিপিএনগুলি আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপে ব্যবহার করেন তবে আপনি আপনার গোপনীয়তা রক্ষা করতে পারেন।

তাহলে আর দেরি কেন, চলুন জেনে নেই সেই ভিপিএনগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত।

01. WindScribe VPN

বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় VPN হলো Windscribe। যা আপনি একদম ফ্রিতে ব্যবহার করতে পারবেন।

আর মজার ব্যাপার হল, আপনি এই VPN দিয়ে প্রতি মাসে প্রায় 10GB ফ্রি ডেটা পাবেন, যা দিয়ে আপনি কোনো চার্জ ছাড়াই আপনার গোপনীয়তা রক্ষা করতে পারবেন এবং আজকাল প্রায় বেশিরভাগ মানুষই Windscribe VPN ব্যবহার করছেন।

তাই আপনি চাইলে এই ফ্রি ভিপিএনও ব্যবহার করে দেখতে পারেন।

02. Tunnelbear VPN

উপরের ভিপিএন ছাড়াও আরেকটি জনপ্রিয় ভিপিএন হলো Tunnelbear। যার মাধ্যমে আপনি সহজেই আপনার কম্পিউটারে আপনার ব্যক্তিগত গোপনীয়তা লুকিয়ে রাখতে পারবেন।

আর আপনি যদি Tunnelbear VPN ব্যবহার করেন, তাহলে আপনি প্রতি মাসে 500MB ডেটা পাবেন, যা দিয়ে আপনি এই ভিপিএনটি পুরো এক মাস বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারবেন।

03. Speedify VPN

আমি একটি বিষয়ে আপনাদের বলেছি যে, বর্তমানে অনেক ধরনের প্রিমিয়াম VPN পাওয়া যায়। যার মাধ্যমে আপনি আপনার ইন্টারনেটের গতি অনেক দ্রুত করতে পারবেন।

আর এই কাজটিকে আপনার জন্য সহজ করার জন্য Speedify VPN -ই যথেষ্ট। কারণ, এই ভিপিএনের বিশেষ গুণ হলো কম গতির ইন্টারনেটকে দ্রুততর করা।

তাই আপনি যদি একবারে ভিপিএন ব্যবহারে নতুন হন। তাহলে Speedify আপনার জন্য নিখুঁত VPN হবে।

অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলের জন্য সেরা বিনামূল্যের ভিপিএন অ্যাপ

কম্পিউটার ছাড়াও, মোবাইলের জন্যও অনেক ধরনের ফ্রি এবং পেইড ভিপিএন রয়েছে। যার মাধ্যমে আপনি আপনার মোবাইল ডিভাইসের গোপনীয়তা গোপন ও সুরক্ষিত রাখতে পারবেন।

তাহলে এখন আমি সেই ধরণের VPN অ্যাপস সম্পর্কে কথা বলব। তো চলুন বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

01. Hotspot Shield VPN

আপনি যদি মোবাইলের জন্য একটি ভালো ভিপিএন খুঁজছেন, তবে প্রথমে যে নামটি আসবে সেটি হলো Hotspot Shield VPN।

এখানে আপনি প্রতিদিন 500 MB ডেটা পাবেন যার সাহায্যে আপনি খুব সহজেই আপনার ফোনে এই VPN ব্যবহার করতে পারবেন।

02. Tunnelbear VPN

টানেলবিয়ার ভিপিএন অনেক দিন ধরে মোবাইলের জন্য একটি খুব জনপ্রিয় অ্যান্ড্রয়েড ভিপিএন। যা বর্তমানে অনেকেই জনপ্রিয় এই ভিপিএন ব্যবহার করছেন।

কিন্তু এখানে আপনি প্রতি মাসে মাত্র 500 MB ডেটা পাবেন, কিন্তু আপনি যদি তাদের প্রিমিয়াম সংস্করণের জন্য যান তবে আপনি আরও ডেটা ব্যবহার করতে পারেন।

03. Turbo VPN

আপনি যদি একবারে বিনামূল্যে ভিপিএন খুঁজছেন তবে আমি বলব TurboVpn আপনার জন্য সেরা একটি।

মজার ব্যাপার হলো, এতে থাকা সব ফিচার একবারে বিনামূল্যে ব্যবহার করা যাবে। এছাড়াও আপনি এটিতে অনেক সার্ভার দেখতে পারেন। যার মাধ্যমে আপনি অনলাইনে আপনার গোপনীয়তা লুকিয়ে রাখতে পারবেন।

04. iTop VPN

Google Play Store-এ 4.3 রেটিং সহ একটি জনপ্রিয় VPN হল iTop৷

এতে আপনি গ্লোবাল প্রক্সি ব্যবহার করতে পারেন। তাছাড়া, আপনি যদি একজন গেম প্রেমী মানুষ হন তবে আপনার গেমের ইন্টারনেট স্পিডকে বহুগুণ বাড়াতে এই VPN অনেক উপকারী ভূমিকা পালন করবে।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো এখানে আপনি কোন ধরনের ডেটা লিমিট পাবেন না, তাই আপনি অন্তত একবার iTop VPN ব্যবহার করে দেখতে পারেন

VPN দিয়ে কি ফ্রি নেট চালানো সম্ভব?

এই বিষয়ে আমি আর্টিকেলের শুরুতেই আপনাদের বলেছি। কয়েক বছর আগে কিছু ভিপিএন ছিলো, যা দিয়ে বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যবহার করা যেত।

সত্যি কথা বলতে কি, আমি এই ফ্রি ভিপিএন দিয়ে ফ্রি ইন্টারনেট ব্যবহার করতাম।

কিন্তু আজকাল তারা খুব একটা কাজ করে না। আমরা তখন এমন চুরি করা ট্রিকস দিয়ে ফ্রি ইন্টারনেট ব্যবহার করতাম। কারণ, সে সময় সিম কোম্পানিগুলোর সার্ভারে অনেক ত্রুটি ছিল, আর এগুলো ব্যবহার করে অনেকেই মোবাইল ফোন দিয়ে ফ্রি ইন্টারনেট ব্যবহার করতেন।

কিন্তু এখনো সিম কোম্পানিগুলোর সার্ভারে এ ধরনের ত্রুটি থাকে। বর্তমানেও কিছু ভিপিএন দিয়ে ফ্রিনেট চালানো যায়।

তবে আমি মনে করি না যে এই টিপসগুলি বর্তমানে কার্যকর হবে। তবে আপনি চেস্ট করতে পারেন৷

ভিপিএন (VPN) নিয়ে আমাদের শেষ কথা

VPN কি এবং VPN এর পূর্ণরূপ কি এসব বিষয় নিয়ে আজকের এই আর্টিকেল স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করা হয়েছে।

এছাড়াও মোবাইল এবং কম্পিউটার এর জন্য কিছু ফ্রি ভিপিএন এর সাথে আপনাকে জানিয়ে দিয়েছি।।

আশা করি VPN সম্পর্কিত আজকের আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগেছে।

যদি এর সম্পর্কে আপনার কোন ধরনের প্রশ্ন থাকে তাহলে নিচে কমেন্ট করে জিজ্ঞেস করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.