Skip to content

অ্যানিমেশন কি ? What is Animation in Bengali

বন্ধুরা, আমাদের আজকের নিবন্ধের বিষয় হল “অ্যানিমেশন”। আজ আমরা “animation কি” বা “অ্যানিমেশন বলতে কি বুঝায়” (What is Animation in Bengali) এবং সংশ্লিষ্ট সকল বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করতে যাচ্ছি। আমরা আশা করি নিবন্ধটি আপনাদের ভালো লাগবে।

অ্যানিমেশন কি - What is Animation in Bengali

অ্যানিমেশন কাকে বলে ?

অ্যানিমেশন কি ? (What is Animation in Bengali)

অ্যানিমেশন গল্পকারদের গল্প বলার একটি নতুন উপায়। আর বলা যায় যে কোনো পরিস্থিতি বা ঘটনাকে অ্যানিমেশনের মাধ্যমে বর্ণনা করা যায়।

অন্য কথায়, একে অ্যানিমেশন বলা হয় যখন ছবির একটি সিরিজ ছুটে আসে এবং জীবন্ত হয়।

পুরানো দিনে, আমরা অ্যানিমেশন বলতে বোঝাতাম, স্বচ্ছ সেলুলয়েড শীটে ছবি আঁকা এবং সেই ছবিগুলিকে একের পর এক একত্রিত করা যাতে এটি একটি চলমান চেহারা দেয়।

অতএব,‌‌ অ্যানিমেশন কি? অ্যানিমেশন হল চলমান চিত্রগুলির প্রক্রিয়া বা ধরন। অবশেষে, ল্যাটিন ভাষা থেকে অ্যানিমেশন শব্দের উৎপত্তি জানা গুরুত্বপূর্ণ।

উদাহরণস্বরূপ: হ্যান্ড-পেন সিস্টেম চলমান ছবি ব্যবহার করে, ডিজিটাল সিস্টেম জিআইএফ এবং ডিজিটাল ভিডিও মাধ্যম ব্যবহার করে। একইভাবে অ্যানিমেশন প্রদর্শনের জন্য ক্যামেরা, কম্পিউটার বা প্রজেক্টর ব্যবহার করা হয়।

সহজ অর্থে একে ‘চলমান চিত্র’ বলা যেতে পারে। তো বন্ধুরা, আপনারা হয়তো বুঝে গেছেন অ্যানিমেশন বলতে কি বোঝায় বা অ্যানিমেশন কি।

অ্যানিমেশন শব্দের উৎপত্তি

অ্যানিমেশন শব্দের উৎপত্তি ল্যাটিন শব্দ anima (আত্মা) থেকে। অ্যানিমেট শব্দের অর্থ হল ‘আত্মা দেওয়া’ বা ‘জীবন দেওয়া’। অর্থাৎ জড় বস্তুর আত্মার প্রতিষ্ঠা।

অ্যানিমেশনের ক্ষেত্রে, এটিকে অ্যানিমেশন বলা হয় কারণ একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক ছবিকে সরানোর মাধ্যমে “অ্যানিমেশন” করা হয়।

অ্যানিমেশন কত প্রকার

প্রযুক্তির সাথে তাল মিলিয়ে চলতে অ্যানিমেশনে অনেক অগ্রগতি হয়েছে।

আর ডিজিটাল যুগ অনুযায়ী অ্যানিমেশনকে ৫ ভাগে ভাগ করা হয়েছে।

  1. ট্রডিশনাল অ্যানিমেশন
  2. 2D অ্যানিমেশন
  3. 3D অ্যানিমেশন
  4. মোশন গ্রাফিক্স
  5. স্টপ মোশন

ট্রেডিশনাল অ্যানিমেশন

এটি ফিল্ম অ্যানিমেশনের প্রাচীনতম রূপগুলির মধ্যে একটি। এই পদ্ধতিকে কখনও কখনও ‘সেল অ্যানিমেশন’ বলা হয়।

ঐতিহ্যবাহী অ্যানিমেশনে সেলুলয়েডের স্বচ্ছ কাগজে ছবি আঁকা হয়।

একটি অ্যানিমেটেড সিকোয়েন্স তৈরি করতে, অ্যানিমেটর (যিনি অ্যানিমেশন তৈরি করেন) প্রতিটি ফ্রেম আঁকতে হবে।

2D অ্যানিমেশন

এটি একটি ফ্লিপবুকের মতো কাজ করে। ঐতিহ্যগত অ্যানিমেশন অনেকটা 2D অ্যানিমেশনের মতো। উদাহরণ হল আলাদিন, দ্য লায়ন কিং এবং অন্যান্য অ্যানিমেটেড কার্টুন।

ঐতিহ্যগত অ্যানিমেশনের অধীনে 2D অ্যানিমেশন পড়া যায়। যেমন ডিজনি মুভি – পিনোকিও, বিউটি অ্যান্ড দ্য বিস্ট ইত্যাদি।

৬ কিন্তু ভেক্টর অ্যানিমেশন প্রথাগত অ্যানিমেশন থেকে একটু আলাদা যা 2D অ্যানিমেশনে ধরা পড়ে না। JPG, GIF, BMP – এই বিন্যাসে ছবিগুলি হল পিক্সেল ছবি, এই ক্ষেত্রে ছবির গুণমান প্রভাবিত হয়।

এই ছবিগুলিকে বড় করা বা রিসাইজ করা যাবে না ভেক্টর গ্রাফিক্সের রেজোলিউশন নিয়ে চিন্তা করার দরকার নেই৷ ভেক্টর চিত্রগুলি ক্ষুদ্র বিন্দু দ্বারা পরিপূরক, যা এই বিন্দুগুলিকে একত্রিত করে একটি সম্পূর্ণ ছবি তৈরি করে।

এটি আপনাকে পছন্দসই চিত্র আকার তৈরি করতে দেয়।

3D অ্যানিমেশন

আজ, 3D বা কম্পিউটার অ্যানিমেশন খুব সাধারণ। কিন্তু হাতে কলম দিয়ে ছবি আঁকার বদলে ঢুকে পড়েছে গ্রাফিক ডিজাইন, যদিও সেটা সহজ নয়।

কম্পিউটার অঙ্কন শুধুমাত্র একটি টুল, এবং 3D অ্যানিমেশন এখনও একটি প্রগতিশীল প্রক্রিয়া।

একটি 3D অ্যানিমেটেড মুভিতে, অ্যানিমেটর চরিত্রটির শরীরের অংশগুলিকে চারপাশে সরানোর জন্য একটি প্রোগ্রাম লেখে। যদি সেই চরিত্রের সমস্ত অংশ সঠিক অবস্থানে থাকে, তাহলে ছবিটি তার নিজস্ব ডিজিটাল ফ্রেম সেট করে।

একই নিয়ম প্রতিটি ফ্রেমের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য এবং কম্পিউটার প্রতিটি ফ্রেমের গতি গণনা করে।

মোশন গ্রাফিক্স

মোশন গ্রাফিক্স হল ডিজিটাল গ্রাফিক্সের একটি অংশ যা সাধারণত বিজ্ঞাপন, সিনেমার শিরোনাম সিকোয়েন্সের জন্য ব্যবহৃত হয়, কিন্তু শেষ পর্যন্ত দর্শকদের মোশন গ্রাফিক্সের সাথে সংযুক্ত করতে ব্যবহৃত হয়। অ্যানিমেশনে এই সমস্ত মাল্টিমিডিয়া জড়িত।

মোশন গ্রাফিক্স সাধারণত ব্যবসা-ভিত্তিক অ্যানিমেশনের জন্য ব্যবহৃত হয়। স্টপ মোশন ক্লিয়ারেন্স, পিক্সেলেশন, অবজেক্ট-মোশন, কাটআউট অ্যানিমেশন এবং আরও অনেক কিছু অন্তর্ভুক্ত করে।

তবে এর মূল ধারণাটি একটি ফ্লিপবুকের মতো। অঙ্কন করার পরিবর্তে, স্টপ মোশন প্রতিটি ফ্রেমে পৃথক ছবি সংগ্রহ করে এবং একত্রিত করে।

স্টপ মোশন

স্টপ মোশন অবশ্যই অ্যানিমেটেড গল্প বলার একটি পুরানো রূপ, বিশেষ করে 3D কম্পিউটার অ্যানিমেশনের তুলনায়।

কিন্তু ছবি অ্যানিমেট করার এই পদ্ধতি ডিজনি বা পিক্সারের আগে থেকেই শুরু হয়েছে। সিনেমা এবং টিভির বাইরে, অ্যানিমেশন ডিজিটাল স্পেসে ব্যবসার জন্য একচেটিয়াভাবে ব্যবহৃত হয়।

বিশেষ করে, ওয়েব/অ্যাপ ডিজাইন এবং ডিজিটাল বিজ্ঞাপনে অ্যানিমেশন ব্যবহার করা হয়, যা ব্যবসার জন্য দারুণ সুবিধা তৈরি করেছে।

ব্যাবসার জন্য অ্যানিমেশন

ব্যবসার জন্য অ্যানিমেশন ব্যবহার করার অনেক উপায় রয়েছে, যা হল –

1. একটি কোম্পানির জন্য একটি প্রচার ভিডিও তৈরি করতে অ্যানিমেশন প্রয়োজন। কারণ, অ্যানিমেশন ভিডিওর ক্ষেত্রে কোনো অভিনেতার প্রয়োজন হয় না। অনেক কম খরচে ভিডিও বানানো যায়।

2. একটি ওয়েবসাইটের লোডিং পৃষ্ঠা তৈরি করতে অ্যানিমেশন প্রয়োজন। এ ছাড়া কোনো ভিজিটর ওয়েবসাইটে এলে অ্যানিমেশনের সাহায্যে ভিজিটর দীর্ঘক্ষণ ওয়েবসাইটে আটকে থাকতে পারে।

3. বিজ্ঞাপনে অ্যানিমেশনের আকর্ষণের অন্যতম প্রধান কারণ। বিশেষ করে ব্যানার বিজ্ঞাপন। সঠিক অ্যানিমেশন দিয়ে আপনি দর্শকদের সাথে আপনার সংযোগ বাড়াতে পারেন।

অ্যানিমেশনের ইতিহাস – (History of Animation)

1920 সাল থেকে ইউরোপে বেশ কয়েকটি অ্যানিমেশন স্টুডিও প্রতিষ্ঠিত হয়েছে৷ এই স্টুডিওগুলি তাদের ছবিগুলিতে দর্শকদের আকৃষ্ট করার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করেছিল৷

সে সময় স্টুডিওতে কার্টুনিস্টদের আঁকা ছবি দেখানো হতো। যেসব কার্টুন আগে থেকেই জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে স্টুডিওগুলোতে জনপ্রিয় ছিল সেগুলোই দর্শকরা দেখতে শুরু করে।

‘টয় স্টোরি’ সম্পূর্ণ কম্পিউটারের সাহায্যে তৈরি একটি অ্যানিমেটেড মুভি। ছবিটি প্রথম অ্যানিমেটেড ফিল্ম হিসেবে মুক্তি পায়। এই ছবি দিয়েই পিক্সার অ্যানিমেটেড ছবির যাত্রা শুরু হয়।

ওয়াল্ট ডিজনির প্রথম অ্যানিমেটেড ছবি, স্নো হোয়াইট অ্যান্ড দ্য সেভেন ডোয়ার্ফস, টয় স্টোরির আগে 1936 সালে মুক্তি পায়।

এই সিনেমাটি সিনেমা জগতে বড় পরিবর্তন এনেছে। প্রথম ফ্লিপ বই অ্যানিমেশন জন বার্নস লিনেট দ্বারা প্রকাশিত হয়েছিল। 17 সেপ্টেম্বর, তিনি অ্যানিমেশনের জগতে একটি বড় পরিবর্তন আনেন।

1894 সালে, হারম্যান কেসলার ফ্লিপ বইটি পরিবর্তন করেন। তিনি এর নাম দেন মিউটোস্কোপ।

1896 সালে, হেনরি উইলিয়াম শর্ট ফিলোস্কোপ নামে একটি ফ্লিপ বই প্রকাশ করেন। ফ্লিপ বই একটি ধারক ছিল. ফলে ক্রেতাদের জন্য পাতা উল্টে ছবি দেখতে সুবিধা হবে।

1895 সালে লুমিয়েরের ভাইয়েরা শেষবার সিনেমাটোগ্রাফ আবিষ্কার করেছিলেন। বিশ্বে একটি নতুন অধ্যায় শুরু হয়, যার নাম সিনেমা যুগ। কিছুদিনের মধ্যেই মুভিতে বিভিন্ন অ্যানিমেটেড ইফেক্ট যুক্ত হতে থাকে।

প্রথম অ্যানিমেটেড ইফেক্ট ব্যবহার করা হয়েছিল ‘এনচ্যান্টেড ড্রয়িং’ সিনেমায়।

অ্যানিমেশন শেখার জন্য কি গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে হবে ?

অ্যানিমেশন শেখার জন্য আপনাকে কোনো গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখার দরকার নেই। কারণ আপনি যখন অ্যানিমেশন শেখার জন্য কোথাও যাবেন তখন আপনাকে যতটা প্রয়োজন গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখানো হবে।

উদাহরণস্বরূপ, আপনাকে Adobe Photoshop এর কিছু টুলস জানতে হবে। আর অ্যানিমেশন শিখতে হলে গ্রাফিক্স জানতে হবে, নইলে অ্যানিমেশন শেখা ঠিক হবে না।

যদি কেউ গ্রাফিক ডিজাইন জানেন, অ্যানিমেশন শেখা অনেক সহজ এবং আরও সুবিধাজনক হয়ে ওঠে।

অ্যানিমেশনের সুবিধা-অসুবিধা:

এখন এনিমেশনের সুবিধা ও অসুবিধা নিয়ে আলোচনা করা যাক।

সুবিধা:

বিশ্বে অ্যানিমেশনের বাজার অনেক বড় এবং প্রগতিশীল, অ্যানিমেশন আর্টিস্ট হিসেবে যেকোনো ভালো অ্যানিমেটর দেশ ও বিদেশে বিভিন্ন চাকরির সুযোগ পেতে পারে। অ্যানিমেশন একটি খুব লাভজনক এবং সৃজনশীল পেশা হিসাবে বিবেচিত হয়।

যদিও অ্যানিমেশন শুধুমাত্র শেখার জন্য নয়, এটি সৃজনশীল চিন্তার প্রয়োজন। আপনি যেকোনো বয়সে অ্যানিমেশন শিখতে পারেন। বেশিরভাগ শিক্ষার্থীই অ্যানিমেশন শিখতে পছন্দ করে বিশেষ করে 12 তম শ্রেণীর পরে।

অসুবিধা:

এই পেশায় দীর্ঘদিন কাজ করতে হয়। এটি অ্যানিমেটরের শরীরে একটি চাপ সৃষ্টি করতে পারে এবং সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ না করলে তার কাজ করার ক্ষমতা হারাতে পারে।

আমাদের শেষ কথা

তো বন্ধুরা, অ্যানিমেশন কি (What is Animation in Bengali) নিয়ে আমাদের নিবন্ধ এখানেই শেষ। আমি আশা করি আপনি আমাদের আজকের নিবন্ধটি পছন্দ করেছেন।

আপনি যদি সত্যিই নিবন্ধটি পছন্দ করেন, তাহলে আপনাকে অবশ্যই এটি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে হবে।

এছাড়াও, নিবন্ধ সম্পর্কিত আপনার যদি কোন প্রশ্ন বা পরামর্শ থাকে তবে আপনি নিচে মন্তব্য করে আমাদের জানাতে পারেন।

অবশ্যই পড়ুন –

1 thought on “অ্যানিমেশন কি ? What is Animation in Bengali”

Leave a Reply

Your email address will not be published.