Skip to content

WWW এর জনক কে ? WWW এর অর্থ কি এবং এর ইতিহাস

www এর পূর্ণরূপ কি ? www এর জনক কে এবং www এর ইতিহাসের বিষয়ে আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা জানবো। www এর অর্থ কি, www এর কাজ কি এটি কিভাবে আবিষ্কার হয় এসব বিষয়ে বিস্তারিত জানতে আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়ুন।

www এর জনক কে

Who is the father of World Wide Web.

বর্তমানে ইন্টারনেটকে একটি বিশাল নেটওয়ার্কিং সিস্টেম বলা যেতে পারে। ইন্টারনেটের মাধ্যমে মানুষ নিমিষেই পৃথিবীর সর্বত্র ঘুরে আসতে পারে।

বর্তমান বিশ্ব ব্যবস্থাকে ইন্টারনেট এমন এক সুতোর বন্ধনে আবদ্ধ করেছে যে, সে সুতো ছিড়ে গেলে হয়তো সমগ্র বিশ্ব ব্যবস্থাই অচল হয়ে পড়বে।

WWW এর অর্থ কি বা WWW এর পূর্ণরূপ কি ?

www এর পূর্ণরূপ হল World Wide Web (ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব). World Wide Web ওয়েব নামেও পরিচিত।

এটি ইন্টারনেটের মাধ্যমে লোকাল কম্পিউটারের সাথে এবং ওয়েব সার্ভারে সংরক্ষিত ওয়েবসাইট (website) বা ওয়েবপেজ (webpage) গুলোর সাথে সংযুক্ত রয়েছে।

ওয়েবসাইট বা ওয়েব পেজে বিভিন্ন ধরনের ডিজিটাল কনটেন্ট যেমন, টেক্সট (text), অডিও (audio), ভিডিও (video), ছবি (picture) ইত্যাদি থাকে।

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে কম্পিউটার, ল্যাপটপ, মোবাইল ফোনের মত ডিভাইস (device) গুলো ব্যবহার করে এসব ওয়েবসাইট বা ওয়েবপেজে থাকা কনটেন্ট গুলো দেখতে পারে বা access করতে পারে।

WWW (World Wide Web) ইন্টারনেটের সাথে আমাদের ডিভাইসে ওয়েব সার্ভারে (web server) সংরক্ষিত বিভিন্ন ওয়েব পেজ গুলো আমাদের প্রদর্শন করে।

তাহলে চলুন জেনে নিই www কি বা www কাকে বলে ?

www কি বা World Wide Web কি ?

www এর পূর্ণরূপ কি

ওয়েবপেজ গুলোকে ওয়েবের building block বলা হয়, যা HTML ফরম্যাটে link এর সাথে connect থাকে, যা hypertext বা hyperlink নামে পরিচিত এবং http এর মাধ্যমে এগুলোকে access করা যায়।

এই লিংক গুলো ইলেক্ট্রনিক সংযোগ (electronic connection) তৈরি করে, যার মাধ্যমে অন্যান্য একটি information source কে একটি কনটেন্টে লিংক করা হয় এবং ব্যবহারকারীরা সহজেই এক ওয়েবপেজ থেকে অন্য ওয়েবপেজে প্রবেশ করতে পারে।

URL (Uniform Resource Locator) নামে একটি ওয়েব পেজের একটি অনলাইন ঠিকানা থাকে। একাধিক ওয়েবপেজ বা ইউআরএল (URL) নিয়ে সংঘটিত ওয়েবপেজ গুলোর একটি সমষ্টিকে ওয়েবসাইট বলা হয় যেমন, www.facebook.com এবং www.google.com হলো এক একটি ওয়েবসাইট।

সুতরাং World Wide Web হলো একটি বিশাল আকারের electronic book এর মতো, যার ওয়েব পেজ গুলো বিশ্বজুড়ে একাধিক সার্ভারে সংরক্ষিত থাকে।

যেহেতু একটি ওয়েবসাইট এর অন্তর্ভুক্ত একাধিক ওয়েবপেজ থাকে, তাই ছোট ওয়েবসাইট গুলো তাদের সকল ওয়েব পেজ কেবল একটি সার্ভারে সংরক্ষিত (host) করে রাখে।

এর বিপরীতে বড় আকারের ওয়েবসাইট গুলো তাদের পেজ গুলোকে বিভিন্ন দেশে অবস্থিত বিভিন্ন ওয়েব সার্ভারে সংরক্ষিত করে রাখে।

এতে যখন একটি দেশের ইউজার ব্যবহারকারী তাদের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার জন্য search করেন, তখন তারা সেই দেশের নিকটতম সার্ভার থেকে দ্রুত search করা ওয়েব পেজে প্রবেশ করতে পারেন।

তাহলে World Wide Web ইন্টারনেট ইউজারদের তথ্য সংগ্রহ, পুনরুদ্ধার এবং বিনিময় করার জন্য একটি বিশাল যোগাযোগ প্লাটফর্ম তৈরি করেছে।

আমরা একটি বইয়ের যেমন একটি পাতা থেকে অন্য একটি পাতায় যেতে পারি একইভাবে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবে আমরা hypertext বা hyperlink এর মাধ্যমে একটি ওয়েব পেজ থেকে অন্য একটি ওয়েব পেজে প্রবেশ করতে পারি।

আর ওয়েব access করা হয় ওয়েব ব্রাউজারের (web browser) মাধ্যমে।

আমাদের মোবাইল বা কম্পিউটারে বিভিন্ন ওয়েব ব্রাউজার যেমন, Google Chrome, Firefox, Opera ইত্যাদি ব্রাউজার install করা রয়েছে।

তাহলে WWW এর মানে কি এবং WWW কিভাবে কাজ করে এ বিষয়ে আশা করি আপনারা জানতে পেরেছেন।

WWW (World Wide Web) এবং ইন্টারনেটের (internet) মধ্যে পার্থক্য কি ?

কিছু লোকজন মনে করে থাকেন যে, www বা ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব এবং ইন্টারনেট হলো একই জিনিস। এই দুটো জিনিসকে এক বলে চালিয়ে দেন। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে, ইন্টারনেট হলো www এর থেকে সম্পূর্ণভাবে আলাদা।

ইন্টারনেট হলো বিশ্বব্যাপী কম্পিউটার, ল্যাপটপ, ট্যাবলেট মোবাইল ফোনের মত ডিভাইসগুলোর একটি বিশাল নেটওয়ার্ক।

এর মাধ্যমে একজন ব্যবহারকারী অন্য একজন ব্যবহারকারীকে ইমেইল পাঠাতে পারে এবং প্রত্যেকে একে অপরের সাথে chatting করতে পারে।

যখন আমরা কোনো ইমেইল পাঠাই বা অন্য কারো সাথে অনলাইনে চ্যাটিং করি, তখন আমরা ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকি।

অন্যদিকে, ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব কি ?

আপনি যখন কোনো তথ্য খোঁজার জন্য ওয়েব ব্রাউজারে google.com এর মত কোন ওয়েবসাইট খুঁজে থাকেন, তখন আপনি ব্যবহার করে থাকেন World Wide Web.

যেটি হলো ইন্টারনেটের মাধ্যমে ওয়েব সার্ভার এর একটি নেটওয়ার্ক।

আমরা যখন আমাদের মোবাইল বা কম্পিউটার এর ব্রাউজারে একটি ওয়েব পেজের URL লিখে সার্চ করি, তখন search করা পেজটিকে সার্ভার আমাদের ব্রাউজারে render করে।

এক্ষেত্রে আমাদের কম্পিউটারকে ক্লাইন্ট (client) বলা হয় যেটি ওয়েব ব্রাউজার ব্যবহার করে এবং এই ওয়েব ব্রাউজার সার্ভারকে কোন তথ্য পাওয়ার জন্য জিজ্ঞাসা করে থাকে।

WWW এর জনক কে এ বিষয়ে নিচে আমি আপনাদের অবশ্যই বলব, তার আগে চলুন জেনে নিই ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের ইতিহাস।

ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের ইতিহাস – (History of World Wide Web)

একজন ব্রিটিশ বিজ্ঞানী টিম বার্নার্স লি (Sir Timothy John Berners-Lee) 1989 সালে World Wide Web আবিষ্কার করেছিলেন।

তিনি CERN এ কর্মরত ছিলেন। World Wide Web মূলত যে কারণে তৈরি করা হয়েছিল তা হলো, যাতে বিশ্বজুড়ে বিজ্ঞানীরা সহজেই তাদের মধ্যে তথ্য আদান প্রদান করতে পারে, একে অপরের সাথে তাদের গবেষণার তথ্য এবং পরীক্ষা নিরীক্ষার ফলাফল গুলো সহজেই শেয়ার করতে পারে।

টিম বার্নার্স-লি CERN কাজ করেছিলেন এবং সেখানে 100 টিরও বেশি দেশের 1700 জনেরও বেশি বিজ্ঞানী কাজ করেছিলেন।

এই বিজ্ঞানীরা CERN সাইটে তাদের কিছু সময় ব্যয় করেন এবং বাকি সময় গুলোতে তারা তাদের নিজ দেশে বিশ্ববিদ্যালয় এবং জাতীয় গবেষণাগারে কাজ করেন।

তাই তাদের এমন একটি জিনিসের প্রয়োজন ছিল যার মাধ্যমে তারা সহজে একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

এই সময়ে ইন্টারনেট এবং হাইপারটেক্সট available ছিলো, কিন্তু কেউ এটা জানত না যে, কিভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করে একটি link বা অন্যান্য documents একে অপরের সাথে শেয়ার করা যায়।

টিম তিনটি প্রধান প্রযুক্তির উপর ফোকাস করেছিলেন, যা কম্পিউটার গুলো একে অপরকে বুঝতে পারে যেমন, HTML, URL এবং HTTP.

সুতরাং, WWW উদ্ভাবনের পিছনে উদ্দেশ্য ছিল সাম্প্রতিক কম্পিউটার প্রযুক্তি, ডেটা নেটওয়ার্ক এবং হাইপারটেক্সটকে ব্যবহারকারীর সুবিধাজনক হিসেবে এবং একটি কার্যকর বৈশ্বিক তথ্য ব্যবস্থায় একত্রিত করা।

WWW এর জনক কে ? (Who is the father of World Wide Web)

স্যার টিমোথি জন বার্নার্স-লি

স্যার টিমোথি জন বার্নাস লি (Sir Timothy John Berners-Lee) কে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের (www) জনক বলা হয়। তিনি 1955 সালের 8 জুন জন্মগ্রহণ করেন। তিনি প্রথম হাইপারটেক্সট ট্রান্সফার প্রটোকল (http) তথ্য ব্যবস্থাপনার প্রস্তাব করেন এবং তা বাস্তবায়ন করেন।

নেটওয়ার্ক প্রযুক্তির বিকাশের ফলে বিশ্বের নানান দেশের মধ্যে ইন্টারনেট বিস্তৃত হয়। ইন্টারনেটকে কেন্দ্র করে একটি শক্তিশালী অর্থনৈতিক ব্যবস্থা গড়ে ওঠে এবং বিকশিত হয় বিভিন্ন ধরনের অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার।

কিভাবে ওয়ার্ড ওয়াইড ওয়েবের উদ্ভাবন শুরু হয় ?

1989 সালের মার্চ মাসে, টিম বার্নার্স-লি WWW এর উদ্ভাবনের উদ্যোগ গ্রহণ করেন এবং ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবের জন্য প্রথম প্রস্তাবটি লিখেছিলেন।

এর পরবর্তীতে, তিনি 1990 সালের মে মাসে আরেকটি প্রস্তাব লেখেন। কয়েক মাস পর, 1990 সালের নভেম্বরে রবার্ট কাইলিয়াউ এর সাথে এটিকে একটি ব্যবস্থাপনা প্রস্তাব হিসেবে আনুষ্ঠানিক রূপ দেওয়া হয়।

এই প্রস্তাবের মধ্যে ওয়েবের বিষয়ে মূল ধারণা এবং পরিভাষা সংজ্ঞায়িত করা হয়েছিল। এই ডকুমেন্টের মধ্যে, ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব নামে একটি “হাইপারটেক্সট প্রজেক্ট” এর বর্ণনা ছিল, যেখানে ব্রাউজার দ্বারা হাইপারটেক্সট ডকুমেন্টের একটি ওয়েবপেজ দেখা যেতে পারে। তার প্রস্তাবে তিনটি প্রধান প্রযুক্তি অন্তর্গত ছিল যেমন, HTML, URL এবং HTTP.

1990 সালে, টিম বার্নার্স-লি তার ধারণা গুলো প্রদর্শন করার জন্য CERN এ প্রথম ওয়েব সার্ভার এবং ব্রাউজার চালাতে সফল হন। তিনি তার ওয়েব সার্ভারের কোড তৈরি করার জন্য একটি নেক্সট কম্পিউটার ব্যবহার করেছিলেন।

1991 সালে, টিম বিশ্বের প্রথম ওয়েবসাইট এবং ওয়েব সার্ভার তৈরি করেন, যার ঠিকানা ছিল info.cern.ch এবং এটি নেক্সট কম্পিউটারে CERN এ চলছিল।

এই ওয়েবসাইটের অধীনে তৈরি করা প্রথম ওয়েব পেজের ঠিকানা ছিল http://info.cern.ch/hypertext/WWW/TheProject.html

আমার শেষ কথা

আজকের আর্টিকেলে আমি WWW কি ? WWW এর জনক কে ? WWW কিভাবে কাজ করে ? WWW এর ইতিহাস এসব বিষয়ে আপনাদের সম্পূর্ণ তথ্য জানানোর চেষ্টা করেছি।

আশা করি, ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব কি এ বিষয়ে এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনারা ভালোভাবে জানতে পেরেছেন।

যদি আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে সোশ্যাল মিডিয়ায় অবশ্যই শেয়ার করবেন। আর আর্টিকেলের সাথে জড়িত কোন প্রশ্ন এবং পরামর্শ থাকলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.